scorecardresearch

‘ব্রেইনে কিস্যু নেই! আবার হার্ভার্ড-এ পড়তে গেছে’, খোঁটা শুনতে হয়েছিল করিনাকে

মার্কিন মুলুকে পড়তে গিয়ে কটাক্ষের শিকার হন কাপুর-কন্যা করিনা।

‘ব্রেইনে কিস্যু নেই! আবার হার্ভার্ড-এ পড়তে গেছে’, খোঁটা শুনতে হয়েছিল করিনাকে
হার্ভার্ডে পড়তে গিয়ে কটাক্ষ শুনতে হয়েছে করিনা কাপুরকে

বর্তমানে তিনি পতৌদি প্যালেসের নবাব-বেগম। ২০০০ সালে জেপি দত্তর ‘রিফিউজি ‘ সিনেমা দিয়ে ফিল্মি কেরিয়ার শুরু করেন করিনা কাপুর। সেইবছরই জিতে নেন সেরা ডেবিউ অভিনেত্রীর ফিল্মফেয়ার পুরস্কার। পরে অবশ্য করণ জোহরের কভি খুশি কভি গম সিনেমায় পু চরিত্রের পর স্টাইলিশ অবতারে ধরা দেন। ইন্ডাস্ট্রিতে কান পাতলেই শোনা যেত, করিনা নাকি বেশ অহংকারি! তবে একটা সময়ে ছিল, যখন করিনা কাপুর একেবারে আর পাঁচজন সাধারণ মেয়ের মতোই জীবন কাটাতেন।

ফিল্মি কেরিয়ার শুরুর আগে মুম্বইয়ের এক সরকারি ল কলেজে পড়তেন অভিনেত্রী। আর পাঁচটা সাধারণ পড়ুয়ার মতোই বেঞ্চে বসে ক্লাস করতেন। তা অবশ্য কাপুরদের একেবারে পছন্দ ছিল না। পরিবারের লোকেরা করিনাকে জিজ্ঞেস করতেন, এধরণের কাজ তুমি কীভাবে করতে পারো? তবে একবছর হতে না হতেই করিনা ভীষণ একঘেয়ে অনুভব করেছিলেন। তিনি জানান, এরপরই মার্কিন মুলুকের নামি বিশ্ববিদ্যালয় হার্ভার্ডে ভর্তি হই।

করিনার কথায়, ভাল সময় কাটানো আর জীবনে আনন্দ উপভোগ করার জন্য হার্ভার্ড সামার স্কুলে এক কম্পিউটার কোর্সে ভর্তি হই। পরিবারের সকলেই আপত্তি জানিয়েছিলেন। বিষেশ করে মা ববিতা কাপুর ও দিদি করিশ্মা। প্রথমে কিছুতেই আমাকে যেতে দিল না আমেরিকায় তিন মাস একা থাকতে হবে বলে। পরে অবশ্য রাজি করিয়ে নিয়েছিলাম।

এরপর নায়িকা এও যোগ করেন যে, আমি হার্ভার্ডে পড়তে যাওয়ার পর কাপুর পরিবারের সকলেই খুব আনন্দ করেছিল। সবাই বলত, এই তো আমার বোনঝি, আমার এই-ওই ওখানে পড়ার সুযোগ পেয়েছে। এত বেশি বাড়াবাড়ি করে ফেলেছিল..। একথাও বলে ছিল কেউ কেউ যে, ব্রেইনে কিছু না থাকা সত্ত্বেও হার্ভার্ডে পড়তে গিয়েছে কাপুরকন্যা। পরিবারের সকলেই তো অষ্টম কিংবা দশম শ্রেণীতে বারবার ফেল করেছে। আর সেখানে আমি হার্ভার্ডে পড়ছি। কাপুরদের জন্য বড়সড় ব্যাপার।

[আরও পড়ুন: পুরনো প্রেম ফিরল? জন্মদিনে খুল্লামখুল্লা সঙ্গীতা বিজলানিকে ‘লাভ ইউ’ বললেন সলমন]

দিদি করিশ্মা তো এমনকী এও নির্দেশ দিয়েছিল যে, হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয় লেখা একটা জ্যাকেট কিনে পরতে। যাতে সিনেমার সেটে ওটা পরে যেতে পারেন। তবে করিনার কাছে এটা খুবই নিম্নরুচির বলে মনে হয়। তাই সেটা করেননি। তবে হার্ভার্ড সামার স্কুলে গিয়েও একঘেয়ে মনে হয় করিনা কাপুরের। তাই সেখানে পড়াশোনা ছেড়ে চলে আসেন মুম্বই। এরপর আর ফিরে তাকাতে হয়নি তাঁকে। বছর খানেকের মধ্যেই ফিল্মস্টার তৈরি হয়ে যান। ২০০২ সালে সিমি গেরিওয়ালের এক চ্যাট শোয়ে এসব কথা জানান করিনা কাপুর।

Stay updated with the latest news headlines and all the latest Entertainment news download Indian Express Bengali App.

Web Title: When kapoors overreacted on kareena kapoor attending harvard summer school