scorecardresearch

বড় খবর

Explained: মুদ্রাস্ফীতি নিয়ন্ত্রণের লক্ষ্যমাত্রা পূরণে ব্যর্থ, সূচির বাইরে ফের বৈঠকে মুদ্রানীতি কমিটি

আগামী মাসের গোড়ায়, ৩ নভেম্বর পরবর্তী বৈঠক ডাকা হয়েছে।

Explained: মুদ্রাস্ফীতি নিয়ন্ত্রণের লক্ষ্যমাত্রা পূরণে ব্যর্থ, সূচির বাইরে ফের বৈঠকে মুদ্রানীতি কমিটি

বৃহস্পতিবার (২৭ অক্টোবর) রিজার্ভ ব্যাংক অফ ইন্ডিয়া (আরবিআই) বলেছে যে ৩ নভেম্বর মুদ্রানীতি কমিটির (এমপিসি) বৈঠক হবে। আরবিআই ভোক্তা মূল্য সূচক (সিপিআই) বজায় রাখতে ব্যর্থ হওয়ায় অতিরিক্ত এই বৈঠক ডাকা হয়েছে।

মুদ্রাস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থতা
আগে থেকে নির্ধারণ করলেও টানা তিনটি ত্রৈমাসিক বা টানা নয় মাস, অর্থাৎ ২০২২-এর জানুয়ারি থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত আরবিআই ভোক্তা মূল্যসূচক ২-৬ শতাংশের মধ্যে রাখতে ব্যর্থ হয়েছে। আরবিআই জানিয়েছে, ১৯৩৪ সালের রিজার্ভ ব্যাংক আইনের ৪৫ জেডএন ধারায় এই বৈঠক ডাকা হয়েছে। বিজ্ঞপ্তিতে কেন্দ্রীয় ব্যাংক মুদ্রানীতি কমিটির ৭ নম্বর ধারা ও ২০১৬ সালের আর্থিক নীতি আইনেরও উল্লেখ করেছে।

RBI আইনের ধারা 45ZN কী বলে?
মুদ্রাস্ফীতি রুখতে ২০১৬ সালে আরবিআই একটি মুদ্রানীতি আইন গ্রহণ করার পর এই প্রথম ধারা 45ZN-এর অধীনে একটি আর্থিক নীতি কমিটির বৈঠক ডাকা হল। ধারার এই বিভাগে বলা হয়েছে যে যদি রিজার্ভ ব্যাংক মুদ্রাস্ফীতির লক্ষ্যমাত্রা পূরণে ব্যর্থ হয়, তবে ব্যর্থতার কারণ ব্যাখ্যা করে সরকারের কাছে একটি প্রতিবেদন পেশ করতে হবে। এই প্রতিবেদনে, কেন্দ্রীয় ব্যাংককে তার প্রস্তাবিত প্রতিকারের পদক্ষেপগুলো উল্লেখ করতে হবে। প্রস্তাবিত প্রতিকারমূলক পদক্ষেপ সময়মত বাস্তবায়নের পর নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে মূল্যস্ফীতির লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করতে হবে।

সপ্তম ধারা কী?
রিজার্ভ ব্যাংকের আর্থিক নীতি কমিটি ২০১৬-র ৭ নম্বর ধারায় বলা হয়েছে যে সরকারের কাছে পাঠানো রিপোর্ট নিয়ে আলোচনা ও খসড়া তৈরির জন্য স্বাভাবিক নীতি প্রক্রিয়ার অঙ্গ হিসেবে একটি পৃথক বৈঠকের প্রয়োজন। যদিও মুদ্রাস্ফীতির লক্ষ্যমাত্রা বজায় রাখতে না-পারার জন্য আর্থিক নীতি কমিটিই দায়ী বলে প্রতিবেদনে জানিয়েছে রিজার্ভ ব্যাংক, তবুও মুদ্রা নীতি কমিটির সঙ্গে পরামর্শ করেই ৩ নভেম্বরের বৈঠকের সময় নির্ধারণ করা হয়েছে।

আরবিআইকে কখন রিপোর্ট পাঠাতে হবে?

যে তারিখে আরবিআই মুদ্রাস্ফীতির লক্ষ্যমাত্রা পূরণ করতে ব্যর্থ হয়েছে, নিয়ম অনুযায়ী তার এক মাসের মধ্যেই প্রতিবেদনটি সরকারের কাছে পাঠাতে হয়। বর্তমান ক্ষেত্রে, সেপ্টেম্বরের ভোক্তামূল্য সূচকে মুদ্রাস্ফীতির তথ্য ১২ অক্টোবর প্রকাশিত হয়েছিল। সেই কারণে, কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে রিপোর্ট পাঠানোর জন্য আরবিআইয়ের হাতে ১২ নভেম্বর পর্যন্ত সময় রয়েছে।

আরও পড়ুন- অনুব্রত ‘প্রভাবশালী’, ফের খারিজ জামিনের আবেদন, জেলেই থাকবেন কেষ্ট

মুদ্রানীতি কমিটির সভার সময়সূচি কী?

বর্তমানে, মুদ্রানীতি কমিটি একটি আর্থিক বছরে ছয় বার বৈঠক করে। প্রতি দুই মাসে বৈঠক হয়। গোটা আর্থিক বছরের জন্য মুদ্রানীতি কমিটির সভার সময়সূচি আগেই ঘোষণা করা হয়েছিল। এই আর্থিক বছরের শুরুতে রিজার্ভ ব্যাংক বলেছিল যে মুদ্রানীতি কমিটি ৬-৮ এপ্রিল, ৬-৮ জুন, ২-৪ আগস্ট, ২৮-৩০ সেপ্টেম্বর, ৫-৭ ডিসেম্বর এবং ২০২৩-এর ৬-৮ ফেব্রুয়ারি বৈঠক করবে।

সূচির বাইরে বৈঠক

এই সূচি অনুসারে, মুদ্রানীতি কমিটি ইতিমধ্যে এপ্রিল, জুন, আগস্ট এবং সেপ্টেম্বরে বৈঠক করেছে। এছাড়াও পরিস্থিতির গুরুত্ব বিচার করে সূচির বাইরে চলতি বছরে ২-৪ মে বৈঠক করেছে। প্রায় চার বছরে প্রথমবারের মতো রেপো রেট ৪০ বেসিস পয়েন্ট (বিপিএস) বাড়িয়েছে। ৩ নভেম্বরের আসন্ন বৈঠকটিও আর্থিক বছরের শুরুতে ঘোষিত সূচির বাইরেই রাখবে কমিটি।

Read full story in English

Stay updated with the latest news headlines and all the latest Explained news download Indian Express Bengali App.

Web Title: Modi calls for one nation one uniform for police