scorecardresearch

বড় খবর

ঘনিষ্ঠ ভিডিও ভাইরাল হতেই বিপাকে বিধায়ক, অস্বস্তিতে শাসকদল

দ্বিতীয় স্ত্রীর দায়ের করা অভিযোগে বিদ্ধ আপ বিধায়ক।

ঘনিষ্ঠ ভিডিও ভাইরাল হতেই বিপাকে বিধায়ক, অস্বস্তিতে শাসকদল
প্রতীকী ছবি

বিধায়কের বিরুদ্ধে তথ্য গোপন করে বিয়ের অভিযোগে তোলপাড় পাঞ্জাব। আম আদমি পার্টির বিধায়ক হরমিত সিং পাঠানমাজরার বিরুদ্ধে তথ্য গোপন করে দ্বিতীয় বিয়ের অভিযোগ উঠেছে। দ্বিতীয় স্ত্রী জিরকপুর থানায় বিধায়কের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেছে। যেখানে বলা হয়েছে বিধায়ক তার প্রথম বিয়ের কথা না জানিয়ে দ্বিতীয় বিয়ে করেছেন।

যদিও এই দাবিকে সম্পূর্ণরূপে ভিত্তিহীন বলে উল্লেখ করেন আপ বিধায়ক। পাঠানমাজরা দাবি করেছেন যে তার প্রথমপক্ষের স্ত্রী, তাঁর দ্বিতীয় বিয়ের কথা জানতেন। পাশাপাশি দ্বিতীয় স্ত্রীর বিরুদ্ধে রেকর্ড করা একটি ভিডিও কল ফাঁস করার অভিযোগ তোলেন। সেই সঙ্গে তিনি গোটা বিতর্কের পিছনে অকালি দলের হাত রয়েছে বলেও অভিযোগ তুলেছেন পাঠানমাজরা। বিধায়কের পরিবার স্বাধীনতার পরে কংগ্রেসে যোগ দিয়েছিল, কিন্তু ১৯৯৪ সালে অকালি দলে ফিরে আসে। পাঠানমাজরা সাম্প্রতিক নির্বাচনে পাতিয়ালার সানাউর কেন্দ্র থেকে জিতেছেন, বর্তমান আকালি বিধায়ক হরিন্দর পাল সিং চান্দুমাজরাকে ৪৯,১১২ ভোটে পরাজিত করেছেন।

বুধবার পাঞ্জাবি চ্যানেল প্রো পাঞ্জাবের সঙ্গে একটি আলাপচারিতায়, তিনি বর্ণনা করেছেন যে কীভাবে তিনি ফেসবুকে তার দ্বিতীয় স্ত্রীর সঙ্গে তার যোগাযোগ হয় এবং তিনি বলেন তার সঙ্গে ১০ বছরেরও বেশি সময় ধরে আমরা সম্পর্কে ছিলাম। তিনি আরও বলেন, তার প্রথম স্ত্রীর শরীর ভালো নেই। “সে (অভিযোগকারী) অবশেষে আমার প্রথম স্ত্রী এবং আমার পরিবারের সকল সদস্যের সঙ্গে দেখা করে এবং আমরা বিয়ে করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। আমার প্রথম স্ত্রী, আমার প্রাপ্তবয়স্ক ছেলেমেয়ে, আমার মা এমনকি আমার শ্বশুরবাড়ির সম্মতিতে বিয়েটা হয়েছে।” তাঁর মতে, আপনেতা অরবিন্দ কেজরিওয়ালও তাঁর দ্বিতীয় বিয়ের কথা জানতেন। “কেজরিওয়ালজিও সে সময় বলেছিলেন যে এটা আমার ব্যক্তিগত সিদ্ধান্ত।”

পাঠানমাজরার কথায়, যে তার দ্বিতীয় স্ত্রী চণ্ডীগড় শহরতলির জিরাকপুরে একটি ভাড়া ফ্ল্যাটে থাকতেন এবং তিনি তার জন্য একটি ফ্ল্যাট কিনে দিয়েছেন, তাকে একটি গাড়িও উপহার দিয়েছিলেন এবং তার সমস্ত খরচ বহন করেছিলেন। ভিডিওতে, তিনি বলেছেন “একজন স্বামী এবং স্ত্রী অনেক অন্তরঙ্গ মুহূর্ত ভাগ করে নেন এবং আমার ধারণা ছিল না যে তিনি আমাদের ভিডিও কল রেকর্ড করছেন। তিনি এখন এটি ভাইরাল করেছেন এবং এইভাবে আমার মানহানি করা হয়েছে” । তিনি আকালি দলের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রেরও অভিযোগ করেন। তিনি আরও বলেন বিধানসভা নির্বাচনে হারের বদলা নিতেই মিথ্যা অভিযোগে তাঁকে ফাঁসানো হয়েছে। পাশাপাশি পুলিশকে তাঁর স্ত্রীর ফোন কল হিস্ট্রি খতিয়ে দেখারও অনুরোধ করেন।

আরও পড়ুন: [ ‘বিলকিসের গণধর্ষকরা সংস্কারী ব্রাহ্মণ’, বিজেপি বিধায়কের মন্তব্যে বিতর্কে ঘি ]

দ্বিতীয় স্ত্রীর দায়ের করা অভিযোগ অনুসারে, তারা গতবছর ১৪ অগাস্ট একটি গুরুদ্বারে বিয়ে করেছিল। “তিনি আমাকে বলেছিলেন যে তিনি তার প্রথম স্ত্রীকে ডিভোর্স দেবেন, কিন্তু আজ পর্যন্ত তিনি তা করেননি,” তিনি পাঠানমাজরার বিরুদ্ধে আর্থিকভাবে সহায়তা না করার, তাকে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করার এবং তাকে হুমকি দেওয়ারও অভিযোগও করেছেন।

পাঠানমাজরা আরও বলেন, তার দ্বিতীয় স্ত্রী চণ্ডীগড় শহরতলির জিরাকপুরে একটি ভাড়া ফ্ল্যাটে থাকতেন এবং তিনি তার জন্য একটি ফ্ল্যাট কিনেছিলেন, তাকে একটি গাড়ি দিয়েছিলেন এবং তার সমস্ত খরচ বহন করেছিলেন। ভিডিওতে, তিনি বলেছেন “একজন স্বামী এবং স্ত্রী অনেক অন্তরঙ্গ মুহূর্ত ভাগ করে নেন এবং আমার ধারণা ছিল না যে তিনি আমাদের ভিডিও কল রেকর্ড করছেন। তিনি এখন এটি ভাইরাল করেছেন এবং এইভাবে আমার মানহানি করেছেন।” তিনি বলেন যে আকালি দল তাকে ধ্বংস করার চেষ্টা করছে কারণ তিনি বিধানসভা নির্বাচনে তাদের নেতাকে পরাজিত করেছিলেন এবং পুলিশকে অনুরোধ করেন স্ত্রীর সমস্ত ফোনকল খতিয়ে দেখার।

এই বছরের শুরুতে, হরিন্দর পাল তার হলফনামায় তার অপরাধমূলক রেকর্ড সম্পর্কে তথ্য গোপন করার অভিযোগ এনে পাঠানমাজরার বিরুদ্ধে হাইকোর্টে একটি পিটিশন দায়ের করেছিলেন। অভিযোগ, নির্বাচনী হলফনামায়, তিনি ২.৪ কোটি টাকার তথ্য পেশ করেন, অথচ তিনি নিজেই পাঞ্জাব, মধ্যপ্রদেশ এবং উত্তর প্রদেশে তার পরিবারের ২৫০ থেকে ৩০০ একর মালিকানা নিয়ে গর্ব করেছেন।

আরও পড়ুন: [ উত্তাল সমুদ্রে উল্টে গেল ট্রলার, খোঁজ নেই ১৮ মৎস্যজীবীর ]

চান্দুমাজরা বলেছেন যে “বর্তমান তথ্যের” ভিত্তিতে তারা পাঠানমাজরার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে চায়। এএপি বিধায়কের রাজনৈতিক ষড়যন্ত্রের দাবি সম্পর্কে, চান্দুমাজরা বলেছেন: “এটি ভিত্তিহীন। আমরা ভোটের সময়ও দ্বিতীয় বিয়ের কথা জানতাম, কিন্তু আমরা কখনই এটাকে ইস্যু করিনি।” যদিও বিধায়ক বলেছেন যে তিনি তার দ্বিতীয় স্ত্রীর বিরুদ্ধে অন্তরঙ্গ ভিডিও ভাইরাল করার মানহানির অভিযোগে আদালতে যাবেন।

আপ যদিও তার শক্তি প্রদর্শনের ইঙ্গিত দিয়েছে। দলের মুখপাত্র মালবিন্দর সিং কাং বলেছেন “এটি বিধায়কের ব্যক্তিগত বিষয়, তবে দল ঘটনাটি সম্পর্কে তার কাছ থেকে ব্যাখ্যা চাইবে। আমি মনে করি একজন জনপ্রতিনিধিকে শৃঙ্খলাবদ্ধ হওয়া উচিত এবং নৈতিক মূল্যবোধ ধরে রাখা উচিত।”

Stay updated with the latest news headlines and all the latest General news download Indian Express Bengali App.

Web Title: Aaps fresh trouble punjab mla in spot over bigamy intimate video