বড় খবর

অমিত-পুত্র জয় শাহর মানহানি মামলায় ‘দ্য ওয়্যার’কে আবেদন প্রত্যাহারে অনুমতি সুপ্রিম কোর্টের

মানহানির বিরুদ্ধে পেশ করা নিজেদের আবেদনপত্র প্রত্যাহার করার আর্জি জানায় দ্য ওয়্যার। সেই আবেদনে সাড়া দিয়েছে দেশের শীর্ষ আদালত।

Jay Shah defamation case, জয় শাহের মানহানির মামলা, amit shah, অমিত শাহ, supreme court, সুপ্রিম কোর্ট, the wire, দ্য ওয়্যার
অমিত শাহের ছেলে জয় শাহ। সংগৃহীত ছবি: ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস।

কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের ছেলে জয় শাহের দায়ের করা মানহানির মামলায় ‘দ্য ওয়্যার’কে আবেদন প্রত্যাহারের অনুমতি দিল সুপ্রিম কোর্ট। একই সঙ্গে মাত্র ১০-১২ ঘণ্টার নোটিস দিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশ করে দেওয়ার ‘সংস্কৃতি’ নিয়েও যথেষ্ট কড়া কথা শুনিয়েছে শীর্ষ আদালত। তাঁর সম্পত্তি বৃদ্ধির অন্তর্তদন্ত নিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশ করায় ‘দ্য ওয়্যার’রের বিরুদ্ধে মানহানির মামলা করেছিলেন শিল্পপতি জয়। সেই মানহানির মামলার বিরুদ্ধে আদালতেরও দ্বারস্থ হয়েছিল দ্য ওয়্যার। নিম্ন আদালতের রায়কে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে গুজরাত হাইকোর্টে গিয়েছেল দ্য ওয়্যার। কিন্তু সেখানে তাঁদের আর্জি খারিজ হয়ে যায়। এরপরই সংবাদমাধ্যমটি সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয়। তবে, গুজরাত হাইকোর্টেই এ মামলার বিচার প্রক্রিয়ায় তাঁরা অংশ নিতে চান বলে এদিন সুপ্রিম কোর্ট থেকে নিজেদের আবেদন তুলে নেওয়ার আর্জি জানানো হয়, এমনটাই জানিয়েছেন কবিল সিব্বল।

আরও পড়ুন: ৩৭০ ধারা বিলোপ মামলা গেল সাংবিধানিক বেঞ্চে

প্রসঙ্গত, প্রথমে দ্য ওয়্যারের আবেদনে সায় দিতে নারাজ ছিল শীর্ষ আদালত। বিচারপতি অরুণ মিশ্রের নেতৃত্বাধীন বেঞ্চ এ মামলার শুনানিতে সংবাদ পরিবেশনের ‘সংস্কৃতি’ নিয়ে তোপ দাগে। বিচারপতি অরুণ মিশ্র বলেন, ‘‘সভ্য দেশে এটা কী ধরনের সংস্কৃতি তৈরি করছি আমরা! রাতে কাউকে নোটিস দিচ্ছি, আর সকালেই খবর প্রকাশ করছি?’’ তিন বিচারপতির বেঞ্চ এদিন বলে, এটা একধরনের ফ্যাশন হয়ে দাঁড়িয়েছে যে কিছু জিজ্ঞাসা করার জন্য কারওকে নোটিস দেওয়া হচ্ছে, আর তাঁর জবাব মেলার আগেই প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়ে যাচ্ছে।

উল্লেখ্য, ২০১৭ সালের অক্টোবর মাসে ‘দ্য ওয়্যারে’র বিরুদ্ধে মানহানির মামলা দায়ের করেছিলেন বিজেপি সভাপতির ছেলে জয় শাহ। ওই সংবাদসংস্থার একটি প্রতিবেদনে জয় শাহের সম্পত্তি বৃদ্ধির অন্তর্তদন্তের রিপোর্ট প্রকাশ করা হয়। ২০১৪ সালে কেন্দ্রে বিজেপি ক্ষমতায় আসার পর কীভাবে জয় শাহের সম্পদের বহর বেড়ে গিয়েছে, সে কথা ওই প্রতিবেদনে তুলে ধরা হয়।

Read the full story in English

Web Title: Amit shah son jay shah defamation case sc the wire

Next Story
মোটা বলে খোঁটা, ডিভোর্সের মামলা দায়ের গাজিয়াবাদ আদালতেBody SHaming, Fat Shaming
The moderation of comments is automated and not cleared manually by bengali.indianexpress.com