scorecardresearch

বড় খবর

উত্তাল সমুদ্রে ভেসে গেল স্বামী-সন্তান! পাড়ে দাঁড়িয়ে ভয়ঙ্কর দৃশ্যের সাক্ষী থাকলেন অসহায় মহিলা

হঠাৎ করেই বিশাল ঢেউ আছড়ে পড়তেই তাতে ভেসে যান তিন জনেই।

হঠাৎ করেই বিশাল ঢেউ আছড়ে পড়তেই তাতে ভেসে যান তিন জনেই।

রবিবার ভয়াবহ দুর্ঘটনার সাক্ষী থাকল ওমানের সমুদ্র সৈকত। চোখের সামনে স্বামী এবং দুই সন্তানকে ভেসে যেতে দেখলেন স্ত্রী। ঘটনাটি ঘটেছে ওমানের আল মুগসাইল এলাকার আল মুগসাইল সৈকতে। তিনজনের মধ্যে এখন পর্যন্ত দুটি দেহ উদ্ধার করা হলেও তৃতীয় জনের খোঁজে তল্লাশি চালাচ্ছে পুলিশ। ঠিক কী ঘটেছিল?

স্থানীয় সংবাদমাধ্যম সূত্রের খবর, ছুটি কাটাতে পরিবারের সঙ্গে ওমানের সমুদ্র সৈকতে আসেন শশিকান্ত মহামানে। সঙ্গে ছিলেন ৬ বছরের ছেলে শ্রেয়াস এবং ৯ বছরের মেয়ে শ্রেয়া। সমুদ্রের ধারে অন্যান্য সকলের মত ছেলে মেয়েকে দিয়ে দাপাদাপি করছিলেন শশীকান্ত। হঠাৎ করেই বিশাল ঢেউ আছড়ে পড়তেই তাতে ভেসে যান তিন জনেই।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন “প্রবল ঢেউয়ে টাল সামলাতে না পেরে বাচ্চাদুটি ভেসে যায়, তাদের বাঁচাতে ছুটে যান শশীকান্ত। উত্তাল সমুদ্রে তিনিও তলিয়ে যান”। প্রশাসন সূত্রে জানানো হয়েছে “শশীকান্ত এবং শ্রেয়াসের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। তবে মেয়ে শ্রেয়ার দেহ এখনও উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি। তার খোঁজে তল্লাশি চালানো হচ্ছে”।

আরও পড়ুন: [‘স্কুলে কেন পায়জামা-কুর্তা’, প্রশ্ন তুলে হেডমাস্টারকে তিরস্কার জেলাশাসকের! ভিডিও ভাইরাল]

রয়্যাল ওমান পুলিশকে উদ্ধৃত করে স্থানীয় সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে, এই ঘটনায় মোট পাঁচজন পর্যটক নিহত হয়েছেন বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। আদতে মহারাষ্ট্রের সাংলির বাসিন্দা শশীকান্ত গত কয়েক বছর ধরেই কর্মসূত্রে দুবাইতে রয়েছেন। স্ত্রী ছেলে মেয়েকে নিয়ে ছুটি কাটাতে তিনি ওমানে গিয়েছিলেন বলে পরিবার সূত্রে জানান গিয়েছে।

সাংলির জেলা শাসক অভিজিৎ চৌধুরী বলেছেন, “পরিবারের আত্মীয়রা ওমানের উদ্দেশ্যে ইতিমধ্যেই রওনা দিয়েছেন । ওমান বা দুবাইতে তাদের যে কোন সাহায্যে ভারতীয় দূতাবাস পরিবারের পাশে থাকবে”।

Stay updated with the latest news headlines and all the latest General news download Indian Express Bengali App.

Web Title: Three of sangli family swept away in oman