চক্ষুদান করতে গেলে বেশ কিছু নিয়ম কিন্তু মেনে চলতে হবে

দৃষ্টি ফেরাতে আপনিও উদ্যোগ নিন

প্রতীকী ছবি

কথায় বলে যার দৃষ্টি নেই তার কাছে সর্বত্রই বেশ অন্ধকার। পৃথিবীর কোনও আলো কোনও উচ্ছাস এমনকি কাছের মানুষদের আনন্দের সঙ্গে উপভোগ করার ইচ্ছে থাকলেও শরীরের সঙ্গ তাদের থাকে না। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সমীক্ষা অনুযায়ী কেবলমাত্র ভারতবর্ষের বুকে অন্ধ মানুষ কিংবা স্বল্প দৃষ্টির মানুষের সংখ্যা প্রায় ৪০ মিলিয়নের কাছাকাছি। তবে বেশিরভাগ মানুষ এই অন্ধত্বের চিকিৎসা সম্পর্কে একেবারেই অজ্ঞ। এবং দৃষ্টিশক্তির বিষয়ে বেশিরভাগ মানুষ কর্নিয়াল রোগ দ্বারাই আক্রান্ত তবে এটি কিন্তু নিরাময় করা সম্ভব। 

কর্ণিয়াল ট্রান্সপ্লান্ট আসলে কী? 

ফার্মাসিউটক্যালসের পরিচালক নিখিল কে মাসুরকার বলেন, চোখের মণিতে কোনরকমের আঘাত এবং অন্যান্য শারীরিক সংক্রমণের কারণে যখন দৃষ্টি প্রতিবন্ধকতার সম্মুখীন হয়। এতে চোখের নানান রোগ এবং আঘাত কর্নিয়ার টিস্যুকে ক্ষতিগ্রস্থ করে এবং এই কারণেই অন্ধত্বের দিকে এগিয়ে যান। তিনি আরও জানান, ভারতে সেই অবকাঠামো এবং দক্ষতা সবই পাওয়া যায়। তাই এর চিকিৎসা সম্ভব। 

কিন্তু এর সঙ্গে চক্ষুদান সম্পর্কিত যোগ কী?

অবশ্যই আছে। যারা দৃষ্টিহীন, তাদের জন্য কিন্তু সাধারণ মানুষকে এগিয়ে আসতে হবে। আপনার একটু অর্গান যদি অন্যের জীবনে দৃষ্টি ফিরিয়ে এনে তাকে দুনিয়া দেখার সুযোগ করে দিতে পারে তবে এই মহৎ কাজ করাই যায়। 

কীভাবে আপনিও চক্ষুদান করতে পারেন? 

শুধুমাত্র মৃত্যুর পরেই চক্ষুদান করা যেতে পারে সরকারি নিয়ম অনুযায়ী। তবে এর ইচ্ছে প্রকাশ নিজের জ্ঞান থাকতেই করতে হবে। বিশদে ফর্ম ফিলাপ করেই পরবর্তী পদক্ষেপে পরিবারে এবং আত্মীয় স্বজনকে সিদ্ধান্ত জানাতে হবে। অনুদানের সময় দুইজন স্বাক্ষীর প্রয়োজন এবং আত্মীয়ের অনুমতি প্রয়োজন। 

কতক্ষণের মধ্যে কর্নিয়া বের করে আনা প্রয়োজন? 

তিনি বলেন, দাতার মৃত্যুর ছয় ঘণ্টার পর কর্নিয়া কাটার পরামর্শ দেওয়া হয়। মৃত্যুর পরে যাতে কর্নিয়ার কর্যকারিতা সঠিক থাকে সেই সময়ে চোখ বন্ধ রাখা উচিত এবং তুলা অথবা ভেজা কাপড় দিয়ে ঢেকে রাখা আবশ্যিক। মিনিট ১৫ এর একটি ছোট্ট পদ্ধতির প্রয়োজন কর্নিয়া কাটার ক্ষেত্রে। 

কারা এই দান কর্মে অংশ নিতে পারেন? 

লিঙ্গ নির্বিশেষে সকলেই এই মহৎ কাজে অংশ নিতে পারেন। হাইপারোপিয়া এবং মায়োপিয়ার মত ত্রুটি কিংবা হাই ব্লাড প্রেসার থাকলেও দান করতে কোনও অসুবিধে নেই। তবে বেশ কিছু রোগী যেমন, হেপাটাইটিস বি, জলাতঙ্ক, সেপটিসেমিয়া, কলেরা, তীব্র লিউকোমিয়া, এবং মেনিনজাইটিস এই ধরনের রোগে আক্রান্ত মানুষদের অনুমতি নেই। 

যে বিষয়গুলি জেনে রাখা দরকার :

মৃত ব্যক্তি নিজে না চাইলেও পরবর্তীতে তার আত্মীয়রা এই সিদ্ধান্ত অবশ্যই নিতে পারেন। 

ছানী অথবা চশমা পড়েন যে ব্যক্তি তিনিও চোখ দান করতে পারেন।

চোখ দান অন্ত্যেষ্টক্রিয়ায় কোনও বিকৃতি করে না। 

চক্ষুদান করার আগে মৃত ব্যক্তির মাথা কমপক্ষে ছয় ইঞ্চি উচু রাখা উচিত। 

একটি কর্নিয়া একজন ব্যক্তিকেই দান করা সাবলীল। 

যুক্ত হন এই মহৎ কাজে, আপনার পরে আরেকজনকে দুনিয়া দেখার সুযোগ করে দিন।

ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস বাংলা এখন টেলিগ্রামে, পড়তে থাকুন

Get the latest Bengali news and Lifestyle news here. You can also read all the Lifestyle news by following us on Twitter, Facebook and Telegram.

Web Title: A great work like eye donation you should come and help

Next Story
অফিসের ব্য়স্ততায় ন ঘণ্টা চেয়ারে বসেই ফিট রাখুন নিজেকে
Show comments