আগামি দিনে আরও বেশি করে থাবা বসাতে চলেছে কর্কট রোগ

মহিলাদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি হয় ফুসফুসের ক্যানসার। চিন, নিউ জিল্যান্ড, হাঙ্গেরি, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে এই ক্যানসারের প্রকোপ সবচেয়ে বেশি। একটাই কারণ - ধূমপান এবং তামাকজাত দ্রব্য সেবন।

By: Kolkata  Updated: Sep 13, 2018, 10:00:52 PM

বিবিসি-র সাম্প্রতিক গবেষণা বলছে, সারা পৃথিবীতেই থাবা বসাতে চলেছে কর্কট রোগ, আগামি দিনগুলোতে আরও বেশি করে। প্রায় ১ কোটি ৮০ লক্ষ মানুষের শরীরে থাবা বসাবে ক্যানসার। সমীক্ষা বলছে, শুধু ২০১২-তেই ৮২ লক্ষের প্রাণ কেড়েছে এই মারণ রোগ।

বিবিসির গবেষণা আরও যা যা বলছে, কোনোটাই সুখকর নয়। খুব শিগগির প্রতি ছ’জন মহিলার মধ্যে একজন এবং পাঁচ জন পুরুষের মধ্যে একজনের শরীরে বাসা বাঁধবে ক্যানসার। ক্যানসারের চিকিৎসা যেমন একদিকে উন্নত হচ্ছে, পাশাপাশি এর প্রকোপে পড়ছেন আরও বেশি মানুষ। ক্রমশ ক্যানসারের কাছে হার স্বীকার করে বাড়ছে মৃতের সংখ্যাও।

আরও পড়ুন, সারা বিশ্বে প্রতি চারজন আত্মহত্যাকারী মহিলার একজন ভারতীয়, বলছে সমীক্ষা

মহিলাদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি হয় ফুসফুসের ক্যানসার। চিন, নিউ জিল্যান্ড, হাঙ্গেরি, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে এই ক্যানসারের প্রকোপ সবচেয়ে বেশি। মহিলাদের মধ্যে ব্যাঙের ছাতার মতো ছড়িয়ে পড়া ফুসফুসের ক্যানসারের পেছনে একটাই কারণ – ধূমপান এবং তামাকজাত দ্রব্য সেবন। সারা পৃথিবী জুড়ে মহিলাদের মধ্যে ধূমপানের প্রবণতা বাড়ছে।

এই প্রসঙ্গে ব্রিটেনের চ্যারিটি ক্যানসার রিসার্চের পক্ষ থেকে জর্জ বাটারওয়ার্থ বলেছেন, “সম্প্রতি নিম্ন এবং নিম্ন-মধ্য আয়ের দেশের মহিলাদের মধ্যে ধূমপানের প্রবণতা বেড়েছে। তামাক শিল্পকে সেভাবেই বাজারে আনা হচ্ছে, যাতে এ সব দেশের মহিলারা ধূমপানের প্রতি আকৃষ্ট হন।”

আরও পড়ুন, বিশ্বে ফুসফুসের সংক্রমণের ৩২ শতাংশই ঘটে ভারতে

বিবিসি-র গবেষণায় ধাক্কা রয়েছে আরও। সমীক্ষায় প্রকাশ পেয়েছে, ক্যানসারের আক্রমণে মৃতের সংখ্যার শীর্ষে থাকবে এশিয়াই। গবেষকরা বলছেন এর পেছনে দুটি কারণ রয়েছে। এক, এশিয়া মহাদেশের জনসংখ্যা সবচেয়ে বেশি। দুই, কিছু কিছু ক্যানসার (যেমন যকৃৎ ক্যানসার) কোনও বিশেষ ভৌগলিক অঞ্চলেই বেশি হয়।

Get all the Latest Bengali News and West Bengal News at Indian Express Bangla. You can also catch all the Latest News in Bangla by following us on Twitter and Facebook


Title: Cancer on the rise: আগামি দিনে আরও বেশি করে থাবা বসাতে চলেছে কর্কট রোগ

Advertisement