বড় খবর


IPL 2019: ‘মানকাডিং’! বাটলারের বিতর্কিত আউট নিয়ে সমালোচিত অশ্বিন

ভিনু মানকড় প্রথমবার ক্রিকেটের ইতিহাসে এভাবে আউট করেছিলেন নন স্ট্রাইকিং এন্ডে থাকা বিলি ব্রাউনকে৷ ১৯৪৭ সালে ১৩ ডিসেম্বর অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে এই ঘটনা ঘটেছিল। সংবাদমাধ্যমে কড়া সমালোচনার মুখে পড়েছিলেন মানকড়।

আউটের সেই মুহুর্ত
আউটের সেই মুহুর্ত

আইপিএল সাক্ষী থাকল অন্যতম বিতর্কিত আউটের ঘটনার। জয়পুরের সাওয়াই মান সিং স্টেডিয়ামে কিংস ইলিভেন বনাম রাজস্থান রয়্যালস ম্যাচ চলাকালীন জস বাটলারকে ‘মানকাডেড’ করে দিলেন কিংস ইলিভেনের অধিনায়ক রবিচন্দ্রন অশ্বিন। বাটলার ব্যাক আপ করে বেরিয়ে গিয়েছিলেন এবং অশ্বিন বল না-করে বেল তুলে নিয়ে ছিলেন! এই নিয়েই সোশ্যাল মিডিয়ায় ওঠে সমালোচনার ঝড়।

ভিনু মানকড় প্রথমবার ক্রিকেটের ইতিহাসে এভাবে আউট করেছিলেন নন স্ট্রাইকিং এন্ডে থাকা বিলি ব্রাউনকে৷ ১৯৪৭ সালে ১৩ ডিসেম্বর অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে এই ঘটনা ঘটেছিল। সংবাদমাধ্যমে কড়া সমালোচনার মুখে পড়েছিলেন মানকড়। কিন্তু পাশে পেয়েছিলেন ডন ব্র্যাডম্যানকে। তিনি বলেছিলেন যে, ক্রিকেটের স্পিরিট বজায় রেখেই এই কাজ করেছেন মানকড়। ক্রিকেটের রুলবুকেও এর উল্লেখ রয়েছে। তারপর থেকেই নন স্ট্রাইকিং এন্ডে ক্রিকেটার ব্যাট ঠেকিয়ে না রাখলে আর সেই এন্ডের উইকেটের বেল ফেলে দিলে সেই আউটকে মানকাডেড বলা হয় ৷

আরও পড়ুন: দ্রুততম ক্রিকেটার হিসেবে এই নজির গড়লেন ‘ইউনিভার্স বস’

দিনের শেষে পাঞ্জাবের নাটকীয় জয়ের পর অধিনায়ক অশ্বিন অবশ্য আত্মপক্ষ সমর্থন করে বলেন ” এটি কোনও বির্তকের বিষয় নয় , খুবই স্বাভাবিক এটি। আমি বল ছোঁড়ার আগেই ও ক্রিজ থেকে বেড়িয়ে যায়। অবশ্যই ওটা ম্যাচের মোড় ঘোরানো মুহুর্তদের একটি, ব্যাটসম্যানকে আরো সতর্ক হতে হত।”

পাঞ্জাবের ১৮৫ রানের লক্ষ্য ভালোভাবেই তাড়া করছিল রাজস্থান রয়্যালস এর ব্যাটসম্যানরা। ৪৩ বলে ৬৯ রানে তখনও ক্রিজে ছিলেন জোস বাটলার। প্রথম জুটিতে রয়্যালস অধিনায়ক অজিঙ্ক রাহানের সাথে ছিল ৭৮ রানের পার্টনারশিপ। ১৩তম ওভারে নন স্ট্রাইক প্রান্তে ছিলেন বাটলার। অশ্বিন ওভারের দ্বিতীয় বলটি করার আগেই ক্রিজ ছেড়ে এগিয়ে যান বাটলার, সেই সুযোগেই তাকে রান আউট করেন অশ্বিন। ঘটনার আকস্মিকতায় অবাক ও ক্ষুদ্ধ হলেও ক্রিকেটীয় নিয়ম মেনে ড্রেসিংরুমে ফিরে যান বাটলার।

তারপরেই শুরু হয় রাজস্থানের ব্যাটিং বিপর্যয়। পরবর্তীতে স্টিভ স্মিত ও সঞ্জু স্যামসনের ৪০রানের পার্টনারশিপেও জয় আসেনি রাজস্থানের। ম্যাচের শেষে বিতর্ক পিছু ছাড়েনি রবিচন্দ্রন অশ্বিনের। প্রথমেই সমালোচনা শুরু করেন ধারাভাষ্যকার হেডেন ৷ এই নিয়ম ক্রিকেট ব্যকরণে থাকলেও এই নিয়মে আউটকে স্পোর্টসম্যান স্পিরিটের পক্ষে বলা হয় না ৷ কিন্তু ম্যাচের শেষে সাংবাদিক বৈঠকে অশ্বিন বলেন, তিনি ক্রিকেটের নিয়মের বাইরে কিছু করেননি, নিয়মের বাইরে না গেলে তা কখনোই “স্পিরিট অফ দ্য গেম”কে ক্ষুণ্ণ করতে পারেনা।

রাজস্থান রয়্যালসের কোচ প্যাডি আপটন অবশ্য এই আউট নিয়ে ভিন্ন মত পোষণ করেছেন। সাংবাদিক বৈঠকে তিনি বলেন, “অশ্বিনের এ ধরনের কাজ তার চরিত্রকেই তুলে ধরছে , তিনি নিজেই নিজেকে প্রতিনিধিত্ব করছেন। ঘটনাটিকে আমি ক্রিকেট ফ্যান ও বিশ্ব ক্রিকেটের দরবারে রেখে দিচ্ছি, তারাই বিচার করুক আজকের ঘটনাটি। আমাদের উদ্দেশ্য হল ভালো খেলে ফ্যানদের আনন্দ দেওয়া এবং যারা এই খেলাটাকে ভালোবাসে তাদের কাছে রোল মডেল হয়ে থাকা। ”

তবে নিজের করা এই আউটকে ম্যাচের মোড় ঘোরানো মূহুর্ত বলে মানতে নারাজ অশ্বিন। স্যাম কারানের ১৭তম ওভারে স্মিথ ও স্যামসনকে ফেরানোকে তিনি ম্যাচের অন্যতম বলে মনে করছেন।

Read the full story in English

Web Title: R ashwin on controversial jos buttler run out

Next Story
IPL 2019: দ্রুততম ক্রিকেটার হিসেবে এই নজির গড়লেন ‘ইউনিভার্স বস’Chris Gayle Becomes Fastest To Score 4000 Runs In IPL
The moderation of comments is automated and not cleared manually by bengali.indianexpress.com