scorecardresearch

বড় খবর

বিনা নোটিসে ফের চাকরি গেল হাজার হাজার কর্মীর! মাস্কের সিদ্ধান্তে বিশ্বজুড়ে তোলপাড়

মোট সাড়ে পাঁচ হাজার চুক্তি ভিত্তিক কর্মচারীর মধ্যে ছাঁটাই করা হয়েছে প্রায় সাড়ে চারহাজার কর্মীকে।

বিনা নোটিসে ফের চাকরি গেল হাজার হাজার কর্মীর! মাস্কের সিদ্ধান্তে বিশ্বজুড়ে তোলপাড়

ছাঁটাই হাজার হাজার কর্মী। হাজার হাজার চুক্তি ভিত্তিক কর্মীকে ছাঁটাই করেছে টুইটার। একাধিক আর্ন্তজাতিক সংবাদমাধ্যমের রিপোর্ট অনুসারে জানা গিয়েছে মোট সাড়ে পাঁচ হাজার চুক্তি ভিত্তিক কর্মচারীর মধ্যে ছাঁটাই করা হয়েছে প্রায় সাড়ে চারহাজার কর্মীকে। কর্মচারীদের বরখাস্ত করার আগে কোনও নোটিশও দেওয়া হয়নি বলেও খবর।

টুইটার হোক বা মেটা, সব প্ল্যাটফর্মেই একাধিক কর্মীকে এর আগেও ছাঁটাই করা হচ্ছে। গত সপ্তাহে, ইলন মাস্ক টুইটারের ৫০ শতাংশ কর্মচারীকে বরখাস্ত করেছেন। সেই সংখ্যাটা প্রায় সাড়ে তিন হাজার। মাস্ক আবারও হাজার হাজার কর্মচারীকে কোনো নোটিশ ছাড়াই চাকরিচ্যুত করেছেন। টুইটার এই মুহূর্তে এই বিষয়ে কোনও মন্তব্য করেনি। খবরে বলা হয়েছে, ইলন মাস্ক শনিবার বিপুল সংখ্যক চুক্তি ভিত্তিক কর্মীকে বরখাস্ত করেছেন।

এর আগে টুইটার প্রায় ৫০ শতাংশ কর্মীকে বরখাস্ত করেছিল। যার জেরে টুইটারের প্রায় ৩,৫০০ কর্মীকে বরখাস্ত করা হয়েছিল। জানা গিয়েছে, গত সপ্তাহের শেষে টুইটার নতুন করে আরও কয়েক হাজার কর্মীকে বরখাস্ত করেছে। মূলত টুইটারের চুক্তি ভিত্তিক কর্মীদের বরখাস্ত করা হয়েছে। তবে আনুষ্ঠানিক ভাবে এই বিষয়ে টুইটার বা ইলন মাস্কের তরফে কিছু জানানো হয়নি।

আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম তাদের প্রতিবেদনে জানিয়েছে, মাস্ক চুক্তিভিত্তিক কর্মীদের একটা বড় অংশকে বরখাস্ত করেছে। টুইটারের দ্বিতীয় দফা ছাঁটাইয়ে ৪,৪০০ থেকে ৫,০০০কর্মী চাকরি হারিয়েছেন বলে জানা গিয়েছে। শনিবার ইমেল মারফৎ কর্মীদের জানানো হয়, টুইটারে তাঁদের কাজের শেষদিন ১৪ নভেম্বর। জানা গিয়েছে, প্রথমে কর্মীদের সংস্থার ইমেল ও আভ্যন্তরীণ যোগাযোগ ব্যবস্থার সুবিধাগুলো কেড়ে নেওয়া হয়। তারপরেই তাঁদের বরখাস্ত করা হয়। দ্বিতীয় দফায় বরখাস্তে মূলত কন্টেন্ট মডারেশন, রিয়েল এস্টেট, বিপণন, প্রযুক্তি বিভাগের কর্মীরা রয়েছে। আমেরিকার পাশাপাশি সারা বিশ্বের টুইটারের কর্মীরা দ্বিতীয় দফার ছাঁটাইয়ের তালিকায় রয়েছেন। টুইটার কেনার পরেই ইলন মাস্ক সংস্থার প্রায় ৩,৫০০ কর্মীকে বরখাস্ত করেন। ৫০ শতাংশ কর্মীকে বরখাস্ত করার পরের সপ্তাহে ইলন মাস্ক চুক্তি ভিত্তির ৪৫০০ থেকে ৫০০০ কর্মীকে বরখাস্ত করেন।

এর এগে সিইও হওয়ার পর ইলন মাস্ক প্রথমবারের মতো কর্মীদের কাছে মেইল ​​পাঠিয়ে অফিসে এসে কাজ করার দাওয়াই দিয়েছেন ইলন মাস্ক। কী বলা হয়েছে ইমেলে? টুইটারের কর্মীদের এখন সপ্তাহে কমপক্ষে ৪০ ঘন্টা অফিসে কাটাতে হবে। সম্প্রতি, টুইটার গত সপ্তাহে তার অর্ধেক কর্মীকে বরখাস্ত করেছে। এর আগে, তিনি প্রাক্তন সিইও পরাগ আগরওয়াল সহ সিনিয়র এক্সিকিউটিভদেরও বরখাস্ত করেছেন। টুইটার কেনার পর ইলন মাস্ক বেশ কিছু নতুন নিয়ম জারি করেছেন। পাশাপাশি ভেরিফায়েড টুইটার অ্যাকাউন্টের জন্য ৮ ডলার চার্জ করার কথাও ঘোষণা করেন তিনি।

আরও পড়ুন: [ ইতিহাসের সন্ধিক্ষণে দাঁড়িয়ে দেশ! ১৫ নভেম্বর উৎক্ষেপণ ‘বিক্রম-এসের’ ]

ব্লুমবার্গের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, প্রথমবারের মতো কর্মীদের উদ্দেশে বিভিন্ন কথা বলেছেন মাস্ক। তিনি বলেন, কর্মীরা বিনামূল্যে খাবারের মতো অনেক সুযোগ-সুবিধা পাবেন না। এরই সঙ্গে, তিনি বাড়ি থেকে কাজের সুবিধা (WFH) সম্পূর্ণ বাতিল করেছেন। এর আগে কোম্পানির কর্মীরা যে কোন জায়গা থেকে কাজ করার সুবিধা পেতেন। অফিসে আসতে না চাইলে বাতিল হতে পারে রেজিস্ট্রেশন।

মাস্ক গত মাসের শেষের দিকে ৪৪ বিলিয়ন ডলারে টুইটার কেনেন। বিশ্বব্যাপী কোম্পানির অর্ধেক কর্মচারীকে বরখাস্ত করা হয়েছে। ভারতে, সংস্থা ৯০ শতাংশ কর্মীকে বরখাস্ত করেছে। যারা বাদ পড়েছেন তাদের সপ্তাহে কমপক্ষে ৪০ ঘন্টা কাজ করতে বলা হয়েছে। আগামী দিনগুলি কর্মচারীদের জন্য কঠিন হতে পারে বলেই মনে করছেন বিশেষজ্ঞমহল। কর্মচারীদের সপ্তাহে ৪০ ঘন্টা কাজের নিদানও এসে গিয়েছে ইতিমধ্যেই। সম্প্রতি এক মহিলা টুইটার কর্মীর একটি ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে। ভিডিওতে দেখা যায়, তিনি অফিসের মেঝেতে ঘুমাচ্ছেন। যা দেখে সোশ্যাল মিডিয়ায় নিন্দার ঝড় উঠতে শুরু করে।

Stay updated with the latest news headlines and all the latest Technology news download Indian Express Bengali App.

Web Title: Twitter reportedly removes thousands of contract workers without notice