বড় খবর

স্টিক নয়, হাত দিয়েই নিমেষে বিষধর ধরেন, কারণ চমকে যাওয়ার মত

প্রায় ৫০ বছর ধরে সাপ ধরার কাজ করেন তিনি। তবে কোনো রকম যন্ত্রপাতির সাহায্য ছাড়াই খালি হাতে সাপ ধরেন তিনি।

উত্তর মেলবোর্নের ওয়েস্টার্ন রিং রোডে রাস্তা মেরামতির কাজ করছিলেন শ্রমিকরা। সেখানেই ম্যানহোলের মধ্যে তিনটে বিষধর সাপ নজরে আসতেই কাজ বন্ধ করে দেওয়া হয়। তবে বেশিক্ষন কাজ বন্ধ রাখতে হয়নি।

স্নেক ক্যাচার রেমন্ড হসারের ডাক পড়ে। তিনি কোনো স্নেক স্টিক বা জাল ব্যবহার না করেই সাপগুলিকে উদ্ধার করে দেন নিমেষে। তার পরেই ম্যানহোলের মধ্যে কাজ চালু করে দেওয়া হয়। পরে জানা যায় যে সাপগুলো ওয়েস্টার্ন ব্রাউন প্রজাতির প্রচন্ড বিষধর। এক ছোবলে যে পরিমাণ বিষ থাকে তাতেই ২০ জন মানুষ তৎক্ষণাৎ প্রাণ হারাতে পারে। সেই প্রচন্ড বিষধর সাপ খালি হাতে ধরেই শিরোনামে রেমন্ড হসার। তিনি পরে সাপগুলিকে ৫ কিমি দূরের ঘাসের জঙ্গলে ছেড়ে দেন।

আরও পড়ুন

ল্যাপটপ চোর শুয়োর! নগ্ন হয়েই তাড়া করলেন ব্যক্তি, দেখুন ভাইরাল ছবি

পরে তিনি ইয়াহু অস্ট্রেলিয়াকে বলছিলেন, “ওরা আমাকে আঘাত করার বদলে নিজেদের মধ্যে কামড়াকামড়ি করতে বেশি ব্যস্ত ছিল।” প্রায় ৫০ বছর ধরে সাপ ধরার কাজ করেন তিনি। তবে কোনো রকম যন্ত্রপাতির সাহায্য ছাড়াই খালি হাতে সাপ ধরেন তিনি।

Wow, three extremely dangerously venomous Eastern Brown Snakes in a pit on the Western Ring Road, Sunshine North bailed…

Posted by Snake Man on Thursday, 6 August 2020

 

প্রাণের ঝুঁকি কেন নেন, জিজ্ঞাসা করলে রেমন্ড জানালেন, “স্নেক স্টিক বা টং ব্যবহার করলে ওদের হাড় ভেঙে যেতে বা শরীরের ভিতরে চোট হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে। আর ওরা ব্যথার মধ্যে থাকলেই কামড়ানোর চেষ্টা করবে। খালি হাতে ওদের চোট লাগার সম্ভাবনা নেই। তাই আমাকে কামড়ানোর চেষ্টাও ওরা করে না।”

নিজে খালি হাতে সাপ ধরার দুঃসাহস দেখালেও বাকিদের এই বিষয়ে সাবধান করে দিচ্ছেন তিনি। তিনি জানান, “শীতকালে ওরা শীতঘুম দেয়। তবে কখনো কখনো নিজেদের গভীর গর্ত থেকে ওরা বেরিয়ে আসে। সেই সময়েই মানুষ আমাকে খোঁজে।”

ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস বাংলা এখন টেলিগ্রামে, পড়তে থাকুন

Get the latest Bengali news and Viral news here. You can also read all the Viral news by following us on Twitter, Facebook and Telegram.

Web Title: Australian snake man raymond hoser melbourne

Next Story
ল্যাপটপ চোর শুয়োর! নগ্ন হয়েই তাড়া করলেন ব্যক্তি, দেখুন ভাইরাল ছবি
The moderation of comments is automated and not cleared manually by bengali.indianexpress.com