বড় খবর

‘ভাইরাস ছড়িয়ে পড়া রুখতে প্রয়োজনীয় সব ব্যবস্থা নিতেই হবে’, ফের সতর্ক করল WHO

দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার একাধিক দেশে করোনার সংক্রমণ উদ্বেগজনকভাবে বেড়েছে। বিধি-নিষেধ আরোপ থাকলেও অনেক ক্ষেত্রেই তা মানছেন না একাংশের জনগন।

covid 19 omicron Strict implementation of public health and social measures a must, says WHO official
করোনা রুখতে কঠোর বিধি-নিষেধ জরুরি, মত WHO-র।

ভাইরাস ছড়িয়ে পড়া রুখতে সব প্রতিরোধ এবং প্রতিরক্ষামূলক ব্যবস্থা নিতে হবে দেশগুলিকে। দেশের সরকারকেই পরিস্থিতি অনুযায়ী নির্দিষ্ট পরিকল্পনার বাস্তবায়ন করতে হবে। জনগণকেও অবশ্যই এই ব্যবস্থাগুলি মেনে চলতে হবে। মাস্ক পরা, হাত ধোয়া, শারীরিক দূরত্ব মেনে চলার মতো নিয়মগুলি মানতেই হবে।” করোনা নিয়ে বিশ্ববাসীকে সতর্ক করলেন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার আঞ্চলিক অধিকর্তা চিকিৎসক পুনম ক্ষেত্রপাল সিং।

দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার একাধিক দেশে করোনার সংক্রমণ উদ্বেগজনকভাবে বেড়েছে। সংক্রমণ এড়াতে বিভিন্ন দেশ বিধি-নিষেধ আরোপ করলেও অনেক ক্ষেত্রেই তা মানছেন না একাংশের জনগন। একাংশের জনগণের দায়িত্বজ্ঞানহীন আচরণের মাশুল গুণতে হচ্ছে বাকিদের। করোনা এড়াতে কয়েকটি স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা ছাড়া আর উপায় নেই, শুরু থেকেই এব্যাপারে বারবার বিশ্ববাসীকে সতর্ক করে চলেছে হু। এবার ফের একবার করোনা কাঁপুনি ধারতে সতর্কবার্তা হু-র দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার আঞ্চলিক অধিকর্তার।

আরও পড়ুন- হাসপাতালে ভর্তির সংখ্যা বাড়বে, পাল্লা দিয়ে বাড়বে মৃত্যুও, ওমিক্রন নিয়ে সাবধানবানী WHO-এর

করোনা নিযে সতর্ক করে চিকিৎসক পুনম ক্ষেত্রপাল সিং আরও বলেন, “ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্টের প্রভাব কম বলে মনে হতে পারে। তবে এটিকে ‘হালকা’ ভাবে নেওয়া উচিত নয়। এটিই সর্বাধিক প্রভাবশালী ভ্যারিয়েন্ট হিসেবে উঠে এসেছে। অত্যন্ত সংক্রামক এই ভ্যারিয়েন্ট ইতিমধ্যে বিশ্বজুড়ে স্বাস্থ্য ব্যবস্থাকে অপ্রতিরোধ্য করে তুলেছে। বিশ্বব্যাপী ওমিক্রন আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হওয়া থেকে শুরু করে মৃত্যু পর্যন্ত দেখছি।” করোনা এড়াতে সতর্ক থাকার পরামর্শ দিয়ে WHO-র এই আধিকারিক বলেন, ”প্রতিটি সংক্রমণই ওমিক্রন নয়। এটা ভুললে চলবে না। ডেল্টা সহ অন্যান্য ভ্যারিয়েন্টগুলিও সংক্রমিত করছে।”

আরও পড়ুন- পঞ্জাবে ২৪ ঘন্টায় ২৬৪% বাড়লো অক্সিজেনের চাহিদা! একদিনে অনেকটাই বাড়লো সংক্রমন

সংক্রমিত ব্যক্তির সংস্পর্শে এলে করোনা আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা থাকে। এছাড়াও যে ঘরে হাওয়া চলাচল বাধাপ্রাপ্ত হয় সেখানেও করোনার সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা বেশি থাকে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার এই আধিকারিকের মতে, ”করোনা আক্রান্ত প্রত্যেকেরই উপসর্গ থাকে না। তাই কে সংক্রমিত তা দেখে বোঝার উপায় থাকে না। তবে আমাদের এই মহূর্তে বায়ু চলাচল করতে পারে এমন ঘরেই বাস করা উচিত। সম্ভব হলে বাড়ির দরজা, জানলা খোলা রাখা উচিত। যাতে সহজেই ঘরে বায়ু চলাচল করতে পারে।”

Read full story in English

Get the latest Bengali news and World news here. You can also read all the World news by following us on Twitter, Facebook and Telegram.

Web Title: Covid 19 omicron strict implementation of public health and social measures a must says who official

The moderation of comments is automated and not cleared manually by bengali.indianexpress.com