বড় খবর

অমিতাভ বচ্চনের উত্থান: কীভাবে জঞ্জির তাঁকে তারকা তৈরি করল

বলিউডের শাহেনশা, অমিতাভ বচ্চনকে নিয়ে সবটা তৈরি বলে ওঠা কখনওই সম্ভব নয়। সুতরাং, সিনেমায় তাঁর পাঁচ দশকের একটি ছবি দেখার পরিবর্তে হিন্দি সিনেমা কীভাবে এক নতুন ‘অ্যাংরি ইয়ং ম্যান’ পেয়েছিল তা নিয়ে কথা বলব।

amitabh bachchan
'জঞ্জির' নবাগত অমিতাভ বচ্চনকে তারকা বানিয়েছে।
শুক্রবার ৭৭ বছরে পা রাখলেন অমিতাভ বচ্চন। যথারীতি, দেশ জুড়ে জন্মদিন উদযাপন করা হচ্ছে। লক্ষ লক্ষ ভক্ত আরব সাগরের তীরে তাঁর বাড়ির সামনে ভিড় করবে শুভেচ্ছা জনানোর জন্য উপহার নিয়ে। একটা সময়ের পর এটা কেমন যেন আচারে দাঁড়িয়েছে। এখন এই কিংবদন্তী সাদা কুর্তা উপর শাল জড়িয়ে ফিল্মি কায়দায় এন্ট্রি নেন বিগ বি। অনেকটা পিতৃসুলভ ছবি। যেমনটা ছিল আনন্দ-র বাবুমশাই। কিন্তু আমরা কথা বলছি অমিতাভ বচ্চনকে নিয়ে, যাঁর জীবন শান্ত অবস্থা থেকে ক্রমশ উত্তাল হয়েছে। পাঁচ দশক পরেও, বিগ বি আগেও থেকেও বেশি ব্যস্ত, তিনি কখনও বুঝতে দেননি বিগত বছরগুলির জীবনের উপর প্রতিফলন।

২০১৯ অমিতাভ বচ্চনের জন্য বিশেষ বছর। ঠিক পঞ্চাশ বছর আগে তিনি কা আব্বাসের ‘সাত হিন্দুস্তানি’ ছবিতে আত্মপ্রকাশ করেন। ছবিটি তৎকালীন গোয়ার পর্তুগিজ পরিস্থিতিতে এক জ্বলন্ত বিপ্লবীর ভূমিকা তুলে ধরে সহানুভূতির আঁকার বিরল প্রচেষ্টা করেছিল বলিউড। কবি হরিবংশ রাই বচ্চনের ছোট ছেলে তার প্রথম ছবিতে একটি উর্দু কবির চরিত্রে অভিনয় করার উপযুক্ত, আবার তার পরের ছবি ‘রেশমা অর শেরা’ (১৯৭১) কোন ভুলে পরিচালক সুনীল দত্ত বচ্চনকে ফের বাকহীন হিসাবেই চিত্রায়িত করেছেন? আপনি তো এমন একটা জিনিস সরিয়ে নিলেন যা সারাজীবন সিনিয়র বচ্চনকে চিহ্নিত করেছে- তাঁর অসাধারণ, স্বতন্ত্র ব্যারিটোন ভয়েস? যে কণ্ঠস্বর তাঁর সবথেকে আকর্ষণীয় উপহার হিসাবে পরিণত হয়েছে? এই আওয়াজ যা কোলা থেকে গহনা পর্যন্ত লক্ষ লক্ষ গ্রাহককে বিক্রি করেছে? সেই স্বর যা কালজয়ী সংলাপ তৈরি করেছে-‘আজ মরে পাস বিল্ডিং হ্যায়, প্রপার্টি হ্যায় ..’, ‘হম জাহান খারে হো জাতে হ্যায় লাইন ওয়াহি সে শুরু হোতি হ্যায়’, ‘তুমহারা নাম কয়্যা হ্যায় বসন্তী’, ‘ডন কা ইন্তেজার তো গয়ারা মুলক কা পুলিশ কর রহি হ্যায়’, ‘রিসতে ম্যায় তো হাম তুমহারে বাপ লাগতে হ্যায়’, ‘আই ক্যান টক ইংলিশ, ওয়াক ইংলিশ’, ‘বিজয় দীনানথ চৌহান…পুরো নাম’ এবং অগণিত কত না জানি?

Amitabh Bachchan (extreme right) in film Saat Hindustani. (Photo: Express Archive)
‘সাত হিন্দুস্থানি’ ছবিতে অমিতাভ (ডানদিকে শেষ)। ফোটো- এক্সপ্রেস আর্কাইভ

আরও পড়ুন, ৩টি ইচ্ছে পূরণ হয়নি, জন্মদিনে জানালেন অমিতাভ

নেতৃত্বের রাগী মানুষ

নিঃশব্দতা থেকে স্বতঃস্ফূর্ততা, প্রকাশ মেহরার জঞ্জিরে স্বতঃস্ফূর্তভাবেই অন্তত কিছুটা এগিয়েছিলেন অমিতাভ। এখানে তিনি কম কথা বলেছিলেন, রাগ দেখিয়েছেন বেশি। কথা হলেই যেখানে তিনি বলতেন “জব তাক বেঠনে কে লিয়ে না কাহা যায়, শরাফত সে খারে রহো,” যে চেয়ারে শের খান বসতে গিয়েছিলেন তাতে লাথি মেরে, পাঠান শের খানকে (প্রাণ) আদেশ দেন। তবে জঞ্জির প্রাণের চেয়ে বচ্চনেরই। প্রাণ আনুষঙ্গিক কারণেই প্রয়োজনীয় এবং জয়া ভাদুড়ি, যিনি বলিউডের উত্থানের আগেই বচ্চনকে বিয়ে করেছিলেন, তিনি জঞ্জিরে অমিতাভের প্রেমিকার ভূমিকায় ছিলেন। জাঞ্জির নবাগত এবিকে এক প্রথম সারির তারকা তৈরি করল। ছবিতে একটি গাড়ি দেখা যায় তা যেটা অমিতাভের জন্য ডিজাইন করা হয়নি। শোনা যায় ধর্মেন্দ্র প্রথম পছন্দ ছিলেন কিন্তি তিনি ব্যস্ত থাকায় ছবিটা তৈরি করতে দেরি হচ্ছিল এবং ছবির ভবিষ্যত অনিশ্চিতায় পড়েছিল।

তবুও, এটি একটি অমিতাভ বচ্চন যান যা তাঁর জন্য ডিজাইন করা হয়নি। একটি গল্পে দেখা যায় যে ধর্মেন্দ্রর মূল পছন্দ ছিল তবে তিনি ব্যস্ত ছিলেন, তাই ছবিটি বিলম্বিত হয়েছিল এবং এর ভবিষ্যত দীর্ঘকাল অনিশ্চিত থেকে যায়। লেখক সেলিম-জাভেদকে যদি বিশ্বাস করা হয়, ধর্মেন্দ্র এক সময়ের জন্য এই স্ক্রিপ্টটির মালিক ছিলেন।

আরেকটি কথাও শোনা যায়, যে রাজকুমার, যিনি তাঁর আগের ছবিতেই একজন পুলিশের চরিত্রে ছিলেন, তাকে জঞ্জিরের প্রস্তাব দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু সম্ভবত পরিচালকের চুলে তেলের গন্ধ পছন্দ করেননি! বলা হয় প্রকাশ মেহরা মুম্বইয়ের পরিবর্তে মাদ্রাজে ছবিটি শুটিংয়ের পরামর্শ দিয়েছিলেন তবে চিত্রনাট্যকার রাজি হননি। এমনকি চিরন্তন রোমান্টিক হিরো দেব আনন্দ বলেছিলেন, “না।” ”জঞ্জির ছেড়ে দেওয়ার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ,” ২০০৭ সালে জয়া বচ্চন একটি চিঠিতে দেব আনন্দকে লিখেছিলেন।

Amitabh Bachchan and Jaya Bhaduri in film Zanjeer. (Photo: Express Archive
‘জঞ্জির’ ছবিতে অমিতভা ও জয়া। ফোটো- এক্সপ্রেস আর্কাইভ

ভাবমূর্তি রয়েই গিয়েছে

প্রচলিত কথা অনুসারে, বচ্চন মন তৈরি করেছিলেন যে জঞ্জির যদি ফ্লপ হয় তবে তিনি একেবারে নিজের শহর এলাহাবাদে ফিরে আসবেন। এই নবাগত ইতিমধ্যে রেকর্ড সংখ্যক ফ্লপ দিয়েছিলেন এবং সম্ভবত যথেষ্ট চড়াই উতরাইও দেখে নিয়েছিলেন। তবে তাড়াতাড়িই তাঁর ভাগ্যের চাকা ঘুরতে চলেছিল। সেলিম-জাভেদের হাতযশে জঞ্জির বচ্চনকে ফ্ল্প ও হতাশা থেকে মুক্তি দিয়েছিল। তবে অন্য যে কারও থেকে, সাফল্য প্রথমসারির এক মানুষকে অবাক করে দিয়েছিল। রাজেশ খান্না তখন বিশাল তারকা এবং তাঁর রোমান্টিক গানে যেখানে তিনি তাঁর ট্রেডমার্ক কুর্তায় হাজির হতেন, মাথা নাড়িয়ে ঝকঝকে হাসি দিয়ে মহিলাদের মনে প্রবেশ করতেন। কিন্তু অমিতাভের প্রবেশ এই ছবি পুরোপুরি বদলে দিল।

অমর আকবর অ্যান্টনি ছবিতে অমিতাভ। ফোটো- এক্সপ্রেস আর্কাইভ

আরও পড়ুন, ৭৭ তম জন্মদিনে অমিতাভ বচ্চনের কিছু দুর্লভ ছবি

‘বিজয় চরিত্রে অনবদ্য ছিলেন অমিতাভ’

গোবিন্দ নিহালনি, ‘অর্ধ সত্য’ ও ‘দেব’-এর নির্মাতা ‘বিজয়’ নিয়ে বলে চললেন।

‘আমি মনে করি কোথাও বিজয়ের এমন কিছু ছিল যা পুরো প্রজন্মকে আঁকড়ে ধরেছিল। যদিও আমি মনোবিজ্ঞানী নই যে বিষয়টি নিয়ে বিশ্লেষণ করব। কিন্তু সেটা কি আদেও যায় আসে? গোটা দেশ ক্ষুব্ধ ছিল। এখন প্রশ্ন কি জন্য? কারণ শুধুমাত্র সিনেমায় কেন এটি প্রকাশ পাচ্ছিল? আমি এর উত্তর জানিনা। কিন্তু আসল কথা হল কোথাও একটি দেশ হিসাবে আমরা ব্যর্থ হচ্ছিলাম – আমরা যে বলছিলাম স্বাধীনতা আমাদের জীবনে এসেছে তা পূরণ হয়নি। আমরা স্বাধীনতা পরবর্তী প্রজন্মকে হতাশ করেছি। তারা বিশ্বাসঘাতকতা অনুভব করেছিল, এই অর্থে সুখ, ন্যায়বিচার এবং মর্যাদার অনুভূতি আসছিলনা। জাতি হিসাবে আমাদের জন্য এটা বৃহত্তর উত্তরণের সময় ছিল। সুতরাং, যা কিছু অপ্রকাশিত ছিল যা এই বিস্ফোরণের অপেক্ষা করছিল। বিজয় এই বিস্ফোরণের অংশ ছিল। আমার মনে হয়েছে দিওয়ার এবং অন্যান্য বিজয় ছবিগুলি ভাল ছিল এবং হিন্দি সিনেমাতে এই জাতীয় অভিব্যক্তি প্রথমবারের জন্য পর্দার সামনে আসছিল কিন্তু এখন পিছনে ফিরে তাকালে মনে হয় আরও কিছুটা কমিয়ে বললে ঠিক হত। অবশ্যই, পুরো জিনিসটি মেলোড্রামা হিসাবে নিয়েছিল মানুষ। মেলোড্রামায় ভুল নেই। এটা সম্পূর্ণ বোঝার মতো মাধ্যম। হিন্দি সিনেমার উত্তরণে বিজয় অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এমন কোনও ব্যক্তিত্বের সামনে আসা যিনি সমাজের অব্যক্ত রাগকে বাইরে বার করেছিলেন এবং বলা উচিত যে চরিত্র নির্মাণে অমিতাভের অবদান অনেকটা। আরও বেশ কয়েকটি ছবি তৈরি হয়েছিল যেখানে নায়ক একজন রাগী। কিন্তু যেভাবে অমিতাভ বচ্চন করেছিলেন, অন্য কেউ তা পারেনি। সেলিম-জাভেদ এবং অমিতাভ বচ্চনের জুটি অনবদ্য কাজ করেছিল।’

(As told to Shaikh Ayaz)

Read the full story in English 

Get the latest Bengali news and Entertainment news here. You can also read all the Entertainment news by following us on Twitter, Facebook and Telegram.

Web Title: Amitabh bachchan birthday

The moderation of comments is automated and not cleared manually by bengali.indianexpress.com