scorecardresearch

বড় খবর

ধারাবাহিক থেকে বাদ পড়তেন ‘ত্রিনয়নী’-নায়িকা, যদি না আবার ডাকতেন সাহানা

Bengali Television, Trinayani: বাংলা টেলিভিশনের দর্শকের অত্য়ন্ত প্রিয় হয়ে উঠেছে ‘ত্রিনয়নী’। ধারাবাহিকের নায়িকার কাস্টিং নিয়ে একটি গল্প রয়েছে যা শুনিয়েছিলেন চিত্রনাট্য়কার স্বয়ং।

ধারাবাহিক থেকে বাদ পড়তেন ‘ত্রিনয়নী’-নায়িকা, যদি না আবার ডাকতেন সাহানা
বাঁদিকে 'ত্রিনয়নী'-নায়িকা শ্রুতি (ছবি ফেসবুক থেকে) ও ডানদিকে চিত্রনাট্য়কার সাহানা দত্ত (নিজস্ব চিত্র)।

Bengali Television, Trinayani Heroine: বাংলা টেলিজগতের সবচেয়ে সফল চিত্রনাট্য়কারদের অন্য়তম সাহানা দত্ত। শুধু তাই নয়, মেন্টরও বটে। সমসাময়িক বহু তারকা অভিনেতা-অভিনেত্রীদের কেরিয়ারে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে তাঁর। যে ধারাবাহিকের গল্প ও চিত্রনাট্য় তিনি লেখেন, সচরাচর সেই ধারাবাহিকের মুখ্য চরিত্রের কাস্টিংয়ের বিষয়ে তাঁর সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত হয়। তাই এসভিএফ টেলিভিশনের নতুন প্রজেক্ট, ‘ত্রিনয়নী’-র নায়ক-নায়িকা নির্বাচনে তাঁর কথাই ছিল শেষ কথা। প্রথমে তিনিই নাকচ করেছিলেন ‘ত্রিনয়নী’-র বর্তমান নায়িকা শ্রুতি দাসকে। পরে অবশ্য় সেই সিদ্ধান্ত পাল্টাতে হয়। পুরো গল্পটাই বলেছিলেন সাহানা দত্ত, ধারাবাহিকের সূচনাপর্বে।

‘ত্রিনয়নী’ ধারাবাহিকের মূল ভিত্তি হল প্রিমনিশন অর্থাৎ আগে থেকে কোনও বিপদের আভাস পাওয়া। মনোবিদ্য়ায় প্রিমনিশনের ব্য়াখ্য়া রয়েছে। বিষয়টা খুব বিরল যেমন নয় তেমনই এই প্রিমনিশনের শক্তিও সবার সমান নয়। কারও কারও এই বিশেষ অনুভূতিপ্রবণতা অত্য়ন্ত তীব্র তাই ঠিক ঠিক বিপদের আঁচ করতে পারেন তাঁরা। ঠিক যেমনটা ঘটে ত্রিনয়নী-র ক্ষেত্রে। শ্রুতির নির্বাচনের ক্ষেত্রেও এমনই একটা ব্য়াপার ঘটেছিল।

Dramatic story of Bengali serial Trinayani's heroine selection
‘ত্রিনয়নী’ জুটি শ্রুতি দাস ও গৌরব রায়চৌধুরী। ছবি: জি বাংলা-র ফেসবুক পেজ থেকে

আরও পড়ুন: একদিকে ডাইনি, অন্যদিকে বিজ্ঞান! দর্শক ঘাবড়ে যাবেন না তো?

কীভাবে ‘ত্রিনয়নী’-নায়িকাকে খুঁজে পেলেন তিনি, এই প্রশ্নের উত্তরে জানান, ”সেটা আবার আমার প্রিমনিশন। ও যেদিন প্রথম এসেছিল অডিশন দিতে, তখন এমনি একটা জামা পরে, চুলটা টেনে খোঁপা করা… ওভাবে ঠিক কেউ আসে না অডিশনে। অফিসে ঢোকার মুখে এক ঝলক দেখেই আমার মনে হয়েছিল হবে না। আমি তখন বলেছিলাম ওকে চলে যেতে বলো। তার পরের দিন সকালে ঘুম ভাঙার পর থেকে বার বার ওর মুখটা মনে পড়ছে, কিছুতেই আর মুখটা স্মৃতি থেকে সরাতে পারছি না। তখন আমি আমার সহকর্মীকে বলি যে ওই মেয়েটিকে লাল পাড় সাদা শাড়ি পরে, খোলা চুলে দেখতে চাই। একটা ভিডিও করে পাঠাতে বলো। ভিডিওটা দেখার পরে আমি বুঝলাম যে কেন বার বার ওর মুখটা মনে পড়ছিল। এই চরিত্রে শ্রুতি ছাড়া আর কারও কথা ভাবতেই পারিনি আর।”

আরও পড়ুন: টলিউড দখলে বিজেপির সাঁড়াশি আক্রমণ

এমন নাটকীয়ভাবেই হয়েছিল নায়িকার চরিত্রের নির্বাচন। আর সাহানা দত্তের প্রিমনিশন যে কতটা শক্তিশালী তা প্রমাণিত। শ্রুতির ওই লাল পাড় সাদা শাড়ি, খোলা চুল, অল্প কাজলের রূপটিই দর্শক পছন্দ করেছেন। তবে টিআরপি তালিকায় দ্বিতীয় স্থানে আসতে চিত্রনাট্য়ের প্রতিটি বাঁক খুবই গুরুত্বপূর্ণ। ‘রাগে-অনুরাগে’, ‘পটলকুমার গানওয়ালা’ বা ‘ভুতু’-র মতোই ‘ত্রিনয়নী’ নিঃসন্দেহে সাহানা দত্তের সবচেয়ে সফল ধারাবাহিকগুলির মধ্য়ে অন্য়তম।

Stay updated with the latest news headlines and all the latest Entertainment news download Indian Express Bengali App.

Web Title: Dramatic story of bengali serial trinayanis heroine selection