বড় খবর


অনলাইনে গুলাবো সিতাবো-র রিলিজ ঘিরে বিতর্ক, সুর চড়াল সিনেমাহল কর্তৃপক্ষ

নির্মাতাদের এই ভাবনায় একেবারেই খুশি নন আইনক্স কর্তৃপক্ষ৷ তাঁদের তরফে এই ঘটনাটিকে “গভীর চিন্তার এবং বিপর্যয়”-এর চিত্র হিসেবেই ব্যাখা করেছেন।

amitabh bacchan, gulabo sitabo
অনলাইনে মুক্তি পাওয়া 'গুলাবো সিতাবো' ছবির দৃশ্যে অমিতাভ বচ্চন

রিলিজের আগেই বিতর্কের বেড়াজালে সুজিত সরকার পরিচালিত গুলাবো সিতাবো। অমিতাভ বচ্চন-আয়ুষ্মান খুরানা অভিনীত এই কমেডি-ড্রামা ছবিটি। বৃহস্পতিবারই অ্যামাজন প্রাইম ভিডিও ঘোষণা করে যে সুজিত সরকার পরিচালিত গুলাবো সিতাবো আগামী ১২ জুন থেকে স্ট্রিমিং করা হবে এই অনলাইন প্ল্যাটফর্মটিতে। এরপরই নিজেদের ক্ষোভ উগরে দিয়েছে পিভিআর এবং আইনক্সের মতো হল মালিকপক্ষরা। তাঁদের দাবি লকডাউন শেষ হওয়া পর্যন্ত ছবি রিলিজের বিষয়ে অপেক্ষা করতে পারতেন পরিচালক৷

এই ছবি প্রোডিউসার রুনি লাহিরী এবং শিল কুমাররা জানান যে ছবিতে এই এপ্রিলেই মুক্তি পাওয়ার কথা ছিল। কিন্তু করোনা অতিমারীর জেরে অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ হয়েছে দেশের সব সিনেমা হল, মাল্টিপ্লেক্স। এদিকে ছবিটি মুক্তির চাপও ছিল৷ লকডাউন সম্পূর্ণভাবে কবে উঠবে তা এখনও জানা নেই, অগত্যা জুনেই অনলাইন প্ল্যাটফর্মেই ছবিটি দেখানোর সিদ্ধান্ত নেন তাঁরা।

আরও পড়ুন, লকডাউনেই মুক্তি পাচ্ছে অমিতাভ-আয়ুষ্মানের ‘গুলাবো সিতাবো’

যদিও নির্মাতাদের এই ভাবনায় একেবারেই খুশি নন আইনক্স কর্তৃপক্ষ৷ তাঁদের তরফে এই ঘটনাটিকে “গভীর চিন্তার এবং বিপর্যয়”-এর চিত্র হিসেবেই ব্যাখা করেছেন। তাঁরা বলেন, “আইনক্স এই ঘটনায় অত্যন্ত অখুশি এবং হতাশ হয়েছে। সিনেমা হলগুলিকে খোলার সময় না দিয়ে যেভাবে তড়িঘড়ি একটি অনলাইন প্ল্যাটফর্মে সিনেমাটি রিলিজের ব্যবস্থা করা হয়েছে আমরা সত্যিই হতাশ। বিশ্বব্যাপী ছবিটিকে প্রচার করতে গিয়ে যেভাবে সিনেমা হলগুলিকে বাদের তালিকায় ফেললেন তা ভবিষ্যতের জন্য গভীর চিন্তার এবং বিপর্যয়েরও”। আইনক্সের পক্ষ থেকে এও বলা হয়, “চলচ্চিত্র নির্মাতা এবং সিনেমাহলদের মধ্যে একটা নিজস্ব ব্যবসায়ীক সম্পর্কও থাকে। যেখানে উভয়পক্ষই উপকৃত হয়। দীর্ঘদিন ধরে এটাই হয়ে এসেছে। আর আজ যখন একে ওপরের পাশে দাঁড়িয়ে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে লড়াই করার সময় তখন অপর পক্ষ সেই সম্পর্ক থেকে সড়ে গেলেন।”

বিহারের ফিল্ম ডিস্ট্রিবিউটর বিশেক চৌহান বলেন, “প্রোডিউসারের কাছে তাঁর ছবি নিজের সন্তানসম। তিনি চাইলে যা খুশি তাই করতেন পারেন সন্তানের ভবিষ্যত নিয়ে। কিন্তু এখানে এর সঙ্গে অনেকে জড়িয়ে। তাই যেটা হল তার একটা ভয়ংকর নেতিবাচক প্রভাব পড়বে এই ক্ষেত্রটিতে।” বিশেক এও বলেন, “ব্যবসায়ীক ভাবনা চিন্তাও ভুল। যখন সিনেমাহলে ছবিটি ভালো চলে তারপর সেটিকে অনলাইন প্ল্যাটফর্মে আনা হয়৷ তাতে ছবিটির মূল্য অনেকগুণ বেড়ে যায়।”

আরও পড়ুন, স্টার জলসা-র পর্দায় ফিরছে যিশু সেনগুপ্তের ‘মহাপ্রভু’, আগামী সপ্তাহেই

অন্যদিকে পিভিআর পিকচার্সের সিইও কমল গিয়ানচন্দানি ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসকে বলেন, “আমরা গুলাবো সীতারোর মতো ছবির অনলাইন প্ল্যাটফর্মে রিলিজে অত্যন্ত হতাশ। আমরা আশা করব আমাদের অনুরোধ প্রোডিউসাররা শুনবেন। সিনেমাহলগুলি খোলা অবধি যদি ওনারা একটু অপেক্ষা করেন।”

ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস বাংলা এখন টেলিগ্রামে, পড়তে থাকুন

Web Title: Theater owners disappointed call gulabo sitabos digital release a mistake

Next Story
গুলাবো সিতাবো-র পর শকুন্তলা দেবী, লকডাউনে দ্বিতীয় ডিজিটাল রিলিজ
The moderation of comments is automated and not cleared manually by bengali.indianexpress.com