scorecardresearch

বড় খবর

বিক্ষোভের নামে তাণ্ডবে জ্বলছে পাঁচলা, গা শিউরে ওঠার মতো ছবি এলাকাজুড়ে

অশান্তির আঁচে তপ্ত হাওড়ার পাঁচলার বিস্তীর্ণ এলাকা। শুক্রবারের পর শনিবার সকাল থেকেও দফায়-দফায় বিক্ষোভ-বিশৃঙ্খলা।

hwh
বিক্ষোভের নামে কার্যত তাণ্ডব হাওড়ার পাঁচলা-সহ বিভিন্ন এলাকায়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ। ছবি: পার্থ পাল।

অশান্তির আঁচে তপ্ত হাওড়ার পাঁচলার বিস্তীর্ণ এলাকা। শুক্রবারের পর শনিবার সকাল থেকেও দফায়-দফায় বিক্ষোভ-বিশৃঙ্খলা। পাঁচলাজুড়ে তাণ্ডবের ছবিটা গা শিউরে ওঠার মতো। পুড়ছে দোকান, বাড়ি। বাজারে ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে শাক-সবজি। পাঁচলা বাজার-সহ গোটা এলাকা শুনশান। যেন অঘোষিত বনধ চলছে। একরাশ আতঙ্কে নিজেদের ঘরবন্দি করে রেখেছেন বাসিন্দারা। হিংসার আঁচ সামাল দিতে রীতিমতো বেগ পেতে হচ্ছে পুলিশকেও। তবুও পাঁচলা জুড়ে মোতায়েন বিশাল পুলিশ বাহিনী ও RAF।

পয়গম্বরকে নিয়ে করা মন্তব্য, তারই জেরে এমন বিশৃঙ্খল পরিস্থিতি হাওড়ার বিবিন্ন এলাকায়। বিক্ষোভের নামে কার্যত তাণ্ডব চলছে হাওড়ার পাঁচলায়। শুক্রবারও দিনভর অশান্তি চলেছে, পাঁচলা, সলপ, রঘুদেবপুর-সহ হাওড়ার বিস্তীর্ণ এলাকায়। শুক্রবারের পর শনিবার সকাল থেকেও অশান্তি শুরু পাঁচলায়। এদিন সকাল সাড়ে ১০টা নাগাদ পাঁচলা বাজারে ঢুকে পড়ে বিক্ষোভকারীরা। লণ্ডভণ্ড করে দেয় গোটা বাজার চত্বর। ঘটনার ঘণ্টাখানেক পর সেখানে গিয়ে তণ্ডবের ছবিটা স্পষ্ট হল।

পাঁচলা বাজারে ছড়িয়ে ছিটিয়ে পড়ে রয়েছে শাক, সবজি। ছবি: পার্থ পাল।

পাঁচলা বাজারের এদিক-ওদিক ছড়িয়ে ছিটিয়ে পড়ে রয়েছে আলু, পটল ঝিঙে, লাউ, কুমড়ো। ফলদোকানি মহম্মদ আইনুলের মাথায় হাত। তাঁর গোটা দোকানটাই পুডিয়ে দিয়েছে বিক্ষোভকারীরা। তাঁর শত অনুরোধ কানেই তোলেনি উন্মত্ত যুবকের দল। হিংসার কথা বলতে গিয়ে তাঁর গলা যেন বুজে আসছে। তিনি বললেন, ”সব ফল পুড়ে গেছে। দোকান পুড়ে গেছে। আমি বাধা দিতে গেলে আমাকে তাড়া করল। দোকান ছেড়ে পালিয়ে গেলাম। অনেক লোক এসেছিল। পুলিশও পালিয়ে গিয়েছে। প্রায় ৭০ হাজার টাকার ক্ষতি হয়ে গেল।”

আরও পড়ুন- ‘শাসকের আস্কারায় সন্ত্রাস’, হাওড়ার অশান্তিতে রাজ্যকেই কাঠগড়ায় তুললেন অনুপম

পাঁচলা বাজারেই কাপড় ও বেডিংয়ের দোকান রেজাউল হকের। বিক্ষোভকারীরা তাঁর দোতলা বিল্ডিংটাতেই আগুন ধরিয়ে দেয়। বহু টাকার ক্ষয়ক্ষতিতে দিশেহারা ব্যবসায়ী রেজাউল। এদিন দুপুরেও নেমেনি তাঁর দোকানের সেই আগুন। দমকলের একটি ইঞ্জিন আগুন নেভানোর কাজ করে চলেছে। দোতলায় সেই আগুন ছড়িয়ে গেছে।

এক কথায় বিক্ষোভকারীরা যেন বধ্যভূমিতে পরিণত করে ফেলেছে গোটা পাঁচলাকে। দিকে-দিকে হিংসার ছবিটা গায়ে কাঁটা দেওয়ার মতো। পাঁচলা বাজার-সহ মেইন রাস্তার মোড়ের এলাকা কার্যত জনমানবশূন্য। তবে গ্রামের ভিতরের দিকে ইতি-উতি জটলা চোখে পড়ছে। দুষ্কৃতীরা পাঁচলা ঢোকার ঠিক মুখে নেতাজি সংঘে বেপরোয়াভাবে ভাঙচুর চালিয়েছে।

আরও পড়ুন- হাওড়ায় যেতে বাধা, সুকান্তর বিরুদ্ধে চরম পদক্ষেপ পুলিশের

পাঁচলা বাজার চত্বরে থাকা একটি রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্কের এটিএম কাউন্টারেও ভাঙচুর করেছে দুষ্কৃতীরা। বাজারের আরও একটি দোকানে এদিন দুপুরে আগুন জ্বলতে দেখা গিয়েছে। পাঁচলার পাশেই রঘুদেবপুরে বিজেপির একটি কার্যালয়ে আগুন ধরিয়ে দেয় দুষ্কৃতীরা। কার্যালয়ের পাশে থাকা একটি দোকানও আগুনে পুড়ে ছারখার হয়ে গিয়েছে।

Stay updated with the latest news headlines and all the latest Westbengal news download Indian Express Bengali App.

Web Title: Howrah panchla is just like burning area in the name of protest