scorecardresearch

বড় খবর

‘বাতেলা দিচ্ছি, অথচ পদ আঁকড়ে রয়েছি’, বিস্ফোরক তাপস, কাদের নিশানা তৃণমুল বিধায়কের?

তাঁর মন্তব্য নিয়ে বিতর্কের মাঝেই ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস বাংলাকে একান্ত সাক্ষাৎকার তৃণমূল বিধায়ক তাপস রায়ের।

‘বাতেলা দিচ্ছি, অথচ পদ আঁকড়ে রয়েছি’, বিস্ফোরক তাপস, কাদের নিশানা তৃণমুল বিধায়কের?
দল সম্পর্কে বিতশ্রদ্ধ বরানগরের তৃণমূল বিধায়ক?

রীতিমত বিস্ফোরক প্রবীণ তৃণমূল নেতা তথা বিধানসভার উপ-মুখ্যসচেতক তাপস রায়। নাম না করে দলের শীর্ষ নেতৃত্বের একাংশকে তীব্র ভাষায় কটাক্ষ করলেন এই তৃণমূল নেতা। ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস বাংলাকে তাপস রায় বলেন, ‘শরীর অবসন্ন হয়ে আসছে, মস্তিস্ক কাজ করছে না, ভুল বকছে, সময় দিতে পারছে না, তবুও পদ আঁকড়ে রাখতেই হবে। রাজনীতি ছাড়ার নির্দিষ্ট বয়সসীমা থাকা উচিত। তবে আমি সময় হলেই রাজনীতি থেকে অবসর নেব। মুখে নবপ্রজন্ম নিয়ে বড় বড় ভাষণ দিচ্ছেন। অথচ বাস্তবে বিপরীত কাজ করছেন অনেকেই।’

তাপস রায় রাজ্য বিধানসভার উপ-মুখ্যসচেতক। ২০১৯-এ তিনি রাজ্যে মন্ত্রী হয়েছিলেন। ২০২১-এ তাঁকে আর মন্ত্রী করেননি তৃণমূল কংগ্রেস। উত্তর কলকাতার তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতি করেছিল দল। তা-ও বেশি দিন থাকেনি সেই পদ। ফের সেই পদে নিয়ে আসা হয়েছে সাংসদ সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়কে। বরাহনগরের তিনবারের বিধায়ক সময় হলেই রাজনীতি থেকে অবসর নিতে চান।

সম্প্রতি তিনি বলেছেন, সময় হলেই রাজনীতি ছেড়ে দেওয়ার কথা দলকে জানিয়ে দেব। আগেকার শিক্ষক-ছাত্র সম্পর্ক আর নেই। এখন কী আর ছাত্র সংসদের কোনও জেনারেল সেক্রেটারিকে কোন স্যার চড় মারতে পারবেন? তাঁরই কলেজ আসা বন্ধ হয়ে যাবে। অথচ তাঁর সময়ে এই রীতি ছিল না বলেই জানিয়েছেন তিনি। বলেছেন ক্রমশ অবক্ষয়ের কথা। তাপস রায় বলেন, ‘আমি একজন সমাজকর্মী, রাজনৈতিক কর্মী। আমার দীর্ঘ ৫১ বছরের রাজনৈতিক জীবনের উপলব্ধি। যেটা আমি অনুভব করেছি সেটাই আমি বলেছি। সমাজে অবক্ষয় স্পর্শ করেনি এমন কোনও জায়গা নেই।’

আরও পড়ুন- হাত কেটে গলায় ঝোলানোর হুমকি, কেষ্ট-গড় বীরভূমে বিস্ফোরক মীনাক্ষী

তবে কি এখনই রাজনীতি ছাড়ছেন এই বর্ষীয়াণ রাজনীতিক? ছাত্র রাজনীতি থেকে উত্থান তাপস রায়ের। ছাত্র পরিষদের রাজ্য সভাপতিও ছিলেন। বরাহনগরের তৃণমূল বিধায়ক বলেন, ‘রাজনীতিতে না থাকার কথা বলিনি। দল ছাড়ার কথাও বলিনি। আমি বলেছি সমস্ত ক্ষেত্রে একটা অবসরের সময়সীমা থাকা উচিত। শরীর স্থবির, মস্তিস্ক কাজ করছে না। ভুলভাল, ভাট বকছে, সেক্ষেত্রে স্বেচ্ছায় তাঁর রাজনীতি ছেড়ে দেওয়া উচিত। বয়সের একটা উর্দ্ধসীমা বা অবসরের ব্যবস্থা থাকা জরুরি। আমি এটা অবশ্যই পালন করব।’

তৃণমূল কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক যুব নেতা অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। এবার মমতা মন্ত্রীসভার সম্প্রসারণে তুলনামূলক যুবরা স্থান পেয়েছেন। দলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়সহ দলের প্রবীণদের একাংশ ছাত্র-যুবদের এগিয়ে আসার কথা বলেন। এদিকে দমদমের তৃণমূল সাংসদ সৌগত রায় বিজেপিকে ক্রমাগত আক্রমণ করতে গিয়ে কুরুচিপূর্ণ ভাষা ব্য়বহার করছেন বলে বিরোধীরা অভিযোগ করছে। তাপস রায়ের বক্তব্য, ‘নবপ্রজন্ম বলে বাতেলা দিচ্ছি, ভাষণ দিচ্ছি অথচ নিজে পদ আঁকড়ে রয়েছি। কেন শরীর পারমিট না করেও আমাকে পদ আঁকড়ে ধরে থাকতে হবে? জনপ্রতিনিধি বা সাংগঠনিক পদ যদি ঠিকঠাক করে করতে হয় দরকার প্রয়োজনীয় এনার্জি, সময়, ডিভোশন। সময় দিতে পারছে না, শরীর দিচ্ছে না নিজেরাই কখনও কখনও বলে আবার পদও আঁকড়ে থাকে।’ তাপস রায় দলের কাদের উদ্দেশে তোপ দাগলেন তা নিয়ে রীতিমতো চর্চা চলছে রাজনৈতিক মহলে।

Stay updated with the latest news headlines and all the latest Westbengal news download Indian Express Bengali App.

Web Title: Tmc mla taposh roy interview on party and his future plans in politics