বড় খবর

Lok Sabha Election 2019: টাচ মি ইফ ইউ ক্যান, ‘এক্সপায়ারি বাবুকে’ চ্যালেঞ্জ মমতার

General Election 2019:‘‘টাকার হাঙর যারা, তারা এখন হ্যাঙ্গারে মিটিং করে। উনিশে মে হয়ে গেলে, এই হ্যাঙ্গারের মধ্যেই ঢুকে যেতে হবে।’’

mamata, modi, মমতা, মোদী, মোদি
মমতা ও মোদী।

General Election 2019: খাস কলকাতায় মমতার ঘরের মাটিতে ব্রিগেডের মঞ্চ থেকে তখন মমতাকে সবে নিশানা করতে শুরু করেছেন মোদী। আর ঠিক সেই সময়েই দিনহাটার মঞ্চে মাইক হাতে তুলে নিয়ে উনিশের লোকসভা নির্বাচনের তার প্রধান প্রতিপক্ষকে জবাব দিতে শুরু করলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বুধবার দিনহাটায় সভার শুরু থেকেই আক্রমণাত্মক ভঙ্গিতে ছিলেন ‘বাংলার অগ্নিকন্যা’। দিনহাটায় মমতার সভার কয়েকঘণ্টা আগে উত্তরবঙ্গের শিলিগুড়ির সভায় মমতাকে তীব্র ভাষায় আক্রমণ করেছেন মোদী। এদিন, দিনহাটা থেকে মোদীর সেইসব আক্রমণের জবাব দিতে গিয়ে তৃণমূল সুপ্রিমো বলেন, ‘‘এখন আর ওঁকে প্রধানমন্ত্রী বলি না। এক্সপায়ারিবাবু বলে ডাকি। কারণ ওঁর সরকারের মেয়াদ শেষ হয়ে গিয়েছে। উনি এখন এক্সপায়ারিবাবু প্রাইম মিনিস্টার।’’ এদিন মমতার বক্তৃতা এতটাই ঝাঁঝালো ছিল যে তাঁর একাধিক উক্তিই সংবাদ শিরোনাম হওয়ার যোগ্য।

লোকসভা ভোটের আরও খবর পড়ুন, এখানে

এয়ার স্ট্রাইকের পাল্টা ভোটার স্ট্রাইক

মোদীর এয়ার স্ট্রাইকের পাল্টা হিসেবে মমতা বলেছেন, ‘‘অনেক এয়ার স্ট্রাইকের কথা বলছেন, জনগণের ভোটার স্ট্রাইক দেখেছেন? দেশের ক্ষতি করার জন্য, মিথ্যা কথা বলার জন্য বিজেপিকে রাজনৈতিক ভাবে ক্ষমতা ছাড়া করুন।’’এদিন মোদীর বিরুদ্ধে আক্রমণ শানাতে গিয়ে মমতা বলেন, ‘‘আমায় চমকে ধমকে হবে না। বন্দুকের সামনে দাঁড়িয়ে লড়াই করব। তোমার কত ক্ষমতা আছে আমি দেখব। টাচ মি ইফ ইউ ক্যান।’’

মোদীকে বিতর্কের আসরে আমন্ত্রণ মমতার

দিনহাটার সভায় মোদীকে চ্যালেঞ্জ করে মমতা বলেন, ‘‘শিলিগুড়িতে না কি উনি বলেছেন, আমরা কিছু করিনি। আপনি কী করেছেন ৫ বছরে? কৈফিয়ত দিন। বিতর্কে অংশ নিন। আপনি প্রশ্ন করুন, আমি জবাব দেব। রোজ রোজ মিথ্যা কথা বলবেন না। ৫৬ ইঞ্চি ছাতি নিয়ে ৫০৭ ইঞ্চি মিথ্যা কথা বলছেন, ঈর্ষা করছেন, অপপ্রপচার করছেন, চৌকিদার মিথ্যাচার করছে। ফ্যাসিস্টদের মতো আচরণ করছেন। বলছে গরিবদের আমরা খেতে দিই না। কতবড় হরিদাস!’’ মমতা আরও বলেন, ‘‘এক্সপায়ারি প্রাইম মিনিস্টার একটা কথা মাথায় রাখবেন, আপনি হিটলারি কায়দায় গায়ের জোরে মিথ্যা কথা বলছেন। হারবেন জেনে মিথ্যা কথা বলছেন। প্রধানমন্ত্রীর মুখে মিথ্যা কথা শোভা পায় না। আপনাকে চ্যালেঞ্জ করে বলছি, ১০০ দিনের কাজে আমরা এক নম্বর। ছি! ছি! লজ্জা হয়, ঘৃণা হয় এত মিথ্যা কথা বলেন।’’

আরও পড়ুন: ‘চোট লেগেছে পাকিস্তানের, যন্ত্রণা হচ্ছে কলকাতায় বসে থাকা দিদির’

চিটফান্ড ইস্যুতে মোদীকে চ্যালেঞ্জ মমতার

চিটফান্ড ইস্যুতে মোদীকে আক্রমণের সুরে মমতা বলেন, ‘‘চৌকিদার মিথ্যাচার করছে। মিথ্যা কথা বলছে। আমাদের আমলে চিটফান্ড হয়নি। আমরা অভিযুক্তদের গ্রেফতার করেছি। প্রমাণ দিন, প্রমাণ না দিতে পারলে, মানুষ আপনাকে দড়ি বেঁধে জেলে নিয়ে যাবে। সিপিএমের আমলে চিটফান্ড হয়েছে। সিপিএমের একটা নেতাকে ধরেছিলেন? কংগ্রেসের একটা নেতাকে ধরেছিলেন? আসামে আপনাদের ডেপুটি সিএমকে ধরেছেন? কাগজ দেখিয়ে দেব, কত টাকা নিয়েছেন। সারদাকাণ্ডের ডায়েরি কোথায় গেল? চোরের মায়ের বড় গলা! শূন্য কলসির বড্ড আওয়াজ! বাংলার উন্নয়ন নিয়ে কথা বলতে এসেছেন! আপনার অভিযোগ ফুৎকারে উড়িয়ে দিচ্ছি। আমার আমলে কৃষকদের আয় তিনগুন বেড়েছে। তোমার রাজত্বে ১২ হাজার কৃষক আত্মহত্যা করেছেন। আমরা না কি গরিবদের জন্য কাজ করিনি। ক্ষমতা থাকলে টিভি চ্যানেলে মুখোমুখি বসবেন, না হলে পাবলিক মিটিং ঠিক করব, দেখি আপনি কী বলেন।’’

মোদীর ব্রিগেড সভাকে কটাক্ষ মমতার

চলতি বছরের ১৯ জানুয়ারি মমতার ব্রিগেড সভাকে ‘জলসা’ বলে ব্রিগেডের মঞ্চে এদিন কটাক্ষ করেছেন মোদী। পাল্টা জবাব দিতে গিয়ে মমতা বলেছেন, ‘‘টাকার হাঙর যারা, তারা এখন হ্যাঙ্গারে মিটিং করে। উনিশে মে হয়ে গেলে, এই হ্যাঙ্গারের মধ্যেই ঢুকে যেতে হবে। কোটি কোটি টাকা খরচ করেছে, জনগণের টাকা লুঠ করেছে। কখনও দেখেছেন এমন হ্যাঙার টানিয়ে কাউকে সভা করতে?’’

জগাই-মাধাই স্লোগান নিয়ে মোদীকে জবাব মমতার

এদিন শিলিগুড়ির সভায় ‘জগাই-মাধাই’ সরকারের মেয়ার শেষ হয়ে গিয়েছে বলে কটাক্ষ করেছিলেন মোদী। সে প্রসঙ্গে মমতা দিনহাটায় বলেন, ‘‘জগাই-মাধাই তো আমার স্লোগান। আমার কথা কাড়ছেন কেন? নিজে কিছু তৈরি কর। পঞ্চায়েত নির্বাচনের সময় আমি এই স্লোগান বলেছিলাম, জগাই-মাধাই-গদাই। তুমি গদাই। আর তোমার দু’পাশে কংগ্রেস ও সিপিএম। বাংলায় তোমরা তিনজনই এক। সিপিএমের লোকেরা সকালে বাম, দুপুরে কংগ্রেস, বিকেলে বিজেপি করে। এ কারণেই বলেছিলাম। বাংলায় যা দেখেছি, তাই বলেছিলাম।’’

আরও পড়ুন: West Bengal Lok Sabha Elections 2019 LIVE Updates: দিনহাটায় মোদীকে কড়া জবাব মমতার

মোদীর লুঠেরা মন্তব্যের জবাব মমতার

মোদী এদিন বলেন, তৃণমূল লুঠেরা। মমতা তীর্যক প্রত্যুত্তর, ‘‘তৃণমূল না কি লুঠেরা! তোমার টাকা খেয়ে লুঠেরা? তোমার টাকা খেয়ে লুঠেরা না, তোমার বিজেপির টিকিট কাকে দিয়েছ? যাকে আমারা তাড়িয়ে দিয়েছিলাম (তাদের দলে নিয়েছ)। রাজবংশীদের দিল্লি নিয়ে গিয়েছিল, বলেছিল অনেক কিছু করবে। কিন্তু, কিচ্ছু করেনি। আজ বলছে, একটু ভাবব, আর ভাবতে হবে না। তুমি নিজেই তো থাকবে না, যার হয় না নয়তে, তার হয় না নব্বইয়ে, খালি মিথ্যা প্রতিশ্রুতি।’’ চা বাগানের উন্নয়ন নিয়ে মোদীর পাল্টা হিসেবে মমতা বলেন, ‘‘উনি না কি চা বাগানের জন্য ভাববেন। গতবার বিধানসভা নির্বাচনের সময় চা বাগান খুলে দেবেন বলেছিলেন। যদি আমি ভুল বলি, আমার বিরুদ্ধে মানহানির মামলা করুন। মানুষকে বোকা বানিয়ে ভোট নিয়েছিলেন (আপনি)।’’

সেনা বিতর্কে মোদীকে একহাত নিলেন মমতা

‘মোদীর সেনা’ বিতর্কে এদিন তীক্ষ্ণ আক্রমণ করেন মমতা। বাংলার মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘‘কে মোদী সেনা হতে চায় বলুন…মোদী কা সেনা তো দাঙ্গা করতা হ্যায়। মোদী তো দাঙ্গাবাজ। সেনা কী করে তা হবে! কমিশন বলেছে, সেনাদের কথা বলা যাবে না। তাহলে প্রধানমন্ত্রী কী করে বলেন?’’ পুলওয়ামা প্রসঙ্গ টেনে মমতা বলেন, ‘‘পুলওয়ামার হামলা তো জানতেন, আগে থেকে খবর ছিল। তবে কেন অত জওয়ানকে প্রাণ দিতে হল? জওয়ানদের রক্ত নিয়ে রাজনীতি করছেন, লজ্জা করে না আপনার।’’ এরপরই সরাসরি মমতা বলেন, ‘‘মিথ্যাচার করে লাভ নেই চৌকিদার। আপনি তো দাঙ্গার মন্ত্রে দিক্ষীত। গান্ধীজিকে কারা খুন করেছিল? তাঁরা নাকি আজ জাতীয়তাবাজদের কথা বলবে। সবাই না কি দেশের শত্রু, আর উনি একাই মিত্র।

আয়ুষ্মান প্রকল্প

আয়ুষ্মান প্রকল্প নিয়ে নমোকে বিঁধে মমতা বলেন, ‘‘প্রত্যকবার এসে বলেন, আমার আয়ুষ্মান পেল না। আরে আপনার আয়ুষ্মান তো ফালতু প্রকল্প। তোমার ভিক্ষা নেব না। আয়ুষ্মানে তো আমায় ৪০ শতাংশ টাকা দিতে হবে। কেন দেব আমি? তাই স্বাস্থ্যসাথী করেছি। বাংলার সঙ্গে পাঙ্গা নিয়ে লাভ নেই। আগে দিল্লি সামলা, তারপর দেখিস বাংলা, বাংলা এমনিতেই এগিয়ে চলেছে।’’ এনআরসি ইস্যুতে মমতা বলেন, ‘‘আগে তো বাংলায় একটা আসন পেয়ে দেখান, একটাও পাবেন না, আর বলছেন এনআরসি করবেন! বাংলায় এসব হবে না।’’

আরও পড়ুন: মোদীর সভার ‘সাফল্যের দাবিদার’ কী অমিত শাহ না বঙ্গ বিজেপি?

বিজেপি ভোট কিনছে, অভিযোগ মমতার

বিজেপি ভোট কেনার জন্য টাকা বিলি করছে বলে অভিযোগ করে মমতা বলেন, ‘‘মানুষকে বলছে টাকা নিন, ভোট দিন, টাকা নিয়ে ভোট কেনা যায় না। শুধু টাকা বিতরণ করছে। আপনাকে কেউ খাবার দিলে খান, আর ওদের বদলাতে যান। বুঝতে পারছেন কী বলছি? বিজেপি কিছু দিলে নিয়ে নিন, বাড়িতে জমা রেখে দিন। তারপর ওদের বিরুদ্ধে ভোট দিন। একটাও ভোট দেবেন না ওদের। বদলে দিন ওদের, দিল্লির সরকারকে পাল্টে দিন।’’ মমতা বলেন, ‘‘বলছে, কোচবিহার দখল করে নেব! যেন দিল্লি কা লাড্ডু, বাংলাতে গিয়ে খেয়ে ফেলব। এই দিল্লির নির্বাচনে তোমাকে সরাব। তুমি কী করে বাংলায় আসবে?’’

নিশানায় নমো টিভি

নমো টিভিকে কটাক্ষ করে মমতা বলেন, ‘‘নিজের নামে নমোর দোকান! নমোর জ্যাকেট, নিজের নামে সিনেমা, নিজের নামে পেন্টুল, প্যান্টালুন্স না, গ্রামের দিকে পেন্টুল বলে, পেন্টুল বিক্রি হচ্ছে, জামাকাপড় বিক্রি হচ্ছে, কোট বিক্রি হচ্ছে। এখন তো খবর, বিক্রির জন্য টিভি চ্যানেল খুলেছে। একটা লোক নিজেকে যে কী ভাবে, ভগবান জানে!’’

Get the latest Bengali news and Election news here. You can also read all the Election news by following us on Twitter, Facebook and Telegram.

Web Title: Mamata banerjee targets pm narendra modi west bengal loksabha elections 2019

Next Story
Lok Sabha Election, 2019: গাড়ি থেকে উদ্ধার ১.৮ কোটি, বিজেপির বিরুদ্ধে আদর্শ আচরণবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগ
The moderation of comments is automated and not cleared manually by bengali.indianexpress.com