বইপাড়া খবর

বেলুড়মঠের নৈশ রূপ

বেলুড়মঠের নৈশ রূপ

দোতলার ঘরটিতে একটি অনির্বাণ আলো জ্বলছে। এত রাত্রে তিনি জেগে আছেন? বাইরের দিকের সিঁড়ি বেয়ে নিঃশব্দে দোতলার বারান্দায় উঠলাম।

মনে পড়ে কী পড়ে না: শতবর্ষের কোজাগরী

মনে পড়ে কী পড়ে না: শতবর্ষের কোজাগরী

আমার মনে হয়, জলপাইগুড়িতে থাকার সময় আমি কলকাতার গল্পই বেশি লিখেছি আর কলকাতায় আসার পর জলপাইগুড়ির গল্প।

পিতৃতন্ত্র ও যৌনতা: প্রাচীন বাংলা কাব্য থেকে উনিশ শতকের পরম্পরা

পিতৃতন্ত্র ও যৌনতা: প্রাচীন বাংলা কাব্য থেকে উনিশ শতকের পরম্পরা

রাধা বললেন, ঝম্পি ঘন গরজন্তি সন্ততি~ ভুবন বরিখন্তিয়া, কান্ত পাহুন কাম দারুণ, সঘন খরশর হন্তিয়া। প্রকৃতি রাজ্যে এই মিলনের উৎসব, অথচ আমার গৃহ শূন্য। রাধা তখন নিজের জন্য এক নতুন স্বপ্নলোক বুনলেন।

ধুলামাটির বাউল: কথাসরস্বতী

ধুলামাটির বাউল: কথাসরস্বতী

মুকুল চট্টোপাধ্যায় কী লিখছেন এখন? ‘বজ্রবিদ্যুৎ ভর্তি খাতা’-র পর নতুন কী লিখলেন জয় গোস্বামী?

নবনীতা দেবসেন, খারাপ ছাত্রের কথন

নবনীতা দেবসেন, খারাপ ছাত্রের কথন

একদিন বললেন, "হোস্টেলে (বিশ্ববিদ্যালয়ের হোস্টেলে) থাকিস, ভালো কিছু খাস না, আজ সন্ধ্যায় আমার বাড়িতে আসবি।" গেলুম। নানা পদের খাবার, নিজেরই রান্না।

মনে পড়ে কী পড়ে না: ভাগ্যিস রবিঠাকুর

মনে পড়ে কী পড়ে না: ভাগ্যিস রবিঠাকুর

আমরা তো এ-বছরের প্রতিমা বিসর্জনের আগেই জেনে গেছি পরের বছর পুজোর সময় বৃষ্টির ভয় নেই, পুজো পেছিয়ে গেছে।

অনাবৃত (শেষ পর্ব): খুনি ধরা পড়ল

অনাবৃত (শেষ পর্ব): খুনি ধরা পড়ল

চমকে উঠলেন বসন্ত সাহা। এ কী পড়ছেন!‌ দাঁড়িয়েই খোলা পাতার লাইন কটা পড়ে ফেললেন।

প্রচেত গুপ্তের ধারাবাহিক উপন্যাস:  অনাবৃত (৪০)

প্রচেত গুপ্তের ধারাবাহিক উপন্যাস: অনাবৃত (৪০)

বিষের সঙ্গে রোমান্সও জড়িয়ে আছে। চটি বই। আজ সকালে নিজের লাইব্রেরির তাকে বই খুঁজতে গিয়ে জীর্ণ মলাটের বইটি চোখে পড়ে।

“আমিই কবিতার কথা শুনে চলি”

“আমিই কবিতার কথা শুনে চলি”

নবনীতা দেবসেনের প্রয়াণ যুগাবসান, বিভিন্ন প্রেক্ষিত থেকে, আঙ্গিক থেকে। তাঁকে নিয়ে লিখলেন তাঁর স্নেহধন্যা, সহগামিনী, কবি চৈতালী চট্টোপাধ্যায়।

‘সই’ থাকবে, কিন্তু সইদের মহীরুহ যে আর নেই

‘সই’ থাকবে, কিন্তু সইদের মহীরুহ যে আর নেই

মেয়েদের মহীরুহ হয়ে ওঠার পথে অনেক অসুবিধে থাকে। নবনীতাদি হাসতে হাসতে, কাঁধে দুটো তিনটে ঝোলা, একটা ব্যাগ, একটা ঝলমলে সংসার সামলে অনায়াসে মহীরুহ হয়ে উঠতে পেরেছিলেন।

ধুলামাটির বাউল: মাধুকরী ভিক্ষা

ধুলামাটির বাউল: মাধুকরী ভিক্ষা

ভিক্ষার প্রথম দিনে বেলুড় বাজার পেরিয়ে যে-বাড়িটির সামনে ‘নারায়ণ হরি’ উচ্চারণ করে দাঁড়িয়েছিলাম, তার দরজা খুলে বেরিয়ে এসে একটি মানুষ আমাকে বললেন, আমরা জাতে মুসলমান।

অনাবৃত ৩৯:  ‘মার্ডার ইন দ্য ড্রিম’

অনাবৃত ৩৯: ‘মার্ডার ইন দ্য ড্রিম’

সব খাবারই সামনে ছিল। কীভাবে বিষ মেশানো হবে?‌ শুধু সুনন্দ আর মেহুলের খাবারে বিষ মেশানো‌ কী করে সম্ভব?‌

অনাবৃত ৩৮:  কারও বয়ানে অসংগতি রয়েছে?‌ সে কে?‌

অনাবৃত ৩৮: কারও বয়ানে অসংগতি রয়েছে?‌ সে কে?‌

‘খুন কে করছে সেটা বড় কথা নয়.‌.‌.‌কীভাবে করেছে সেটাই! হাউ ডান ইট। সেটা বুঝতে পারলে সব স্পষ্ট হবে। এতক্ষণ বিষ নিয়ে ভাবছিলাম, ‌এবার একটা ছুরি সমস্যায় ফেলছে।’‌

অনাবৃত ৩৭: সন্দেহের তালিকা কীভাবে তৈরি হল?‌

অনাবৃত ৩৭: সন্দেহের তালিকা কীভাবে তৈরি হল?‌

ছুরিতে ইন্টারেস্ট নেই বসন্ত সাহার। তিনি মনে করেন এই হত্যা রহস্যের সঙ্গে ছুরির কোনও সম্পর্ক নেই। সম্পর্ক রয়েছে বিষের।

মনে পড়ে কী পড়ে না: যাদুর দেশের ছেলে অভিজিৎ

মনে পড়ে কী পড়ে না: যাদুর দেশের ছেলে অভিজিৎ

মহানির্বাণ রোডের বাড়ি থেকে বড় হয়ে ওঠার প্রক্রিয়ার মধ্যেই নিহিত ছিল আজকের হয়ে ওঠার ম্যাজিক, লিখছেন দেবেশ রায়।

অনাবৃত ৩৬: তবে কি রহস্য ভেদ হয়ে গেল?‌

অনাবৃত ৩৬: তবে কি রহস্য ভেদ হয়ে গেল?‌

আর দেরি করা যাবে না। যা করবার দ্রুত করতে হবে। সময় কমে আসছে।

অনাবৃত ৩৫: দুটি ফোন কারা করল?‌ কাদের করল?‌

অনাবৃত ৩৫: দুটি ফোন কারা করল?‌ কাদের করল?‌

ফেনার মধ্যে বুক পর্যন্ত ডুবিয়ে বসেছিল সে। হাতের পেপারব্যাক সরিয়ে একটু উঠল সে। ফটফটে সাদা ফেনায় আলতো ভাবে ভেসে উঠল তার বাদামী দুটি স্তন।

Advertisement

ট্রেন্ডিং